পাতা:অশনি সংকেত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৪৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অশনি-সংকেত SS -ঠিক তাই। ও হাটে অতি কন্টে দ’কাঠা চাল কিনে এনেছিলাম । -क्षन् ? -ধান কেউ বিক্লিক করাচে না। করলেও না’ টাকা সাড়ে ন’ টাকা মণ । -এর উপায় কি হবে পণ্ডিত মশায় ? আপনি বসন, সেই পরামর্শ করতি তো আমার আসা। সত্যি কথা বলতি কি আপনার কাছে, কাল রাতি আমার খাওয়া হয় নি। চাল ছিল না ঘরে। মা-লক্ষীর কাছে অন্ন খেয়ে বাঁচলাম। বড়ো বয়সে খিদের কষ্ট সহ্যি করতে °ाद्रिता ८ उञा । —কি বলি বলান, শানে বন্ড কষ্ট হােল। করবারও তো নেই কিচ্ছ। আমাদের গ্রামের অবস্থাও তথৈবচ | দীন ভট্যচায দীঘনিঃস্বাস কেলে বললে-বড়ো বয়সে এবারডা না খেয়ে মরতি হবে দেখাচি । গঙ্গাচরণ বললে-তাই তো পণ্ডিত মশাই, কি যে করি, বক্সতে তো কিচ্ছ, পারি নে। তা ছাড়া আপনাদের গাঁয়ের ব্যবস্থা এখান থেকে কি করে করা যাবে ! কতটা চাল চান ? চালান দিকি একবার বিশ্বেত্বস মশায়ের বাড়ী । কিন্তু বিশ্ববাস মশায়ের বাড়ী যাওয়া হবে কি, দীন ভট্যচায মানমখে বললে-তাই তো, *लिनाकg tङा आनि मि। গঙ্গাচরণ একটু বিরক্তির সরে বললে-আনেন নি, তবে আর কি হবে ? কি করতে পারি। আমি ? গঙ্গাচরণ বোধ হয় একটু কড়া সরে বলে ফেলেছিল কথাটা । দীন ভট্টাচাষ হতাশভাবে বললে-তাই তো, এবারডা দেখােচ সত্যিই না খেয়ে মরতি ३द । গঙ্গাচরণ ভাবলে—ভাল মশকিল ! তুমি না খেয়ে মরবে তা আমি কি করবো ? আমার কি দোষ ? এই সময় অনঙ্গ-বোঁ দোরের আড়াল থেকে হাতনাড়া দিয়ে গঙ্গাচরণকে ডাকলে । গঙ্গাচরণ ঘরের মধ্যে গিয়ে বললে--কি বলচ ? "জিলেন্স করো উনি কি এখন দখোনা পাকা কাঁকুড় খাবেন ? ঘরে আর তো কিছ: --থাকে তো দাও না। জিজ্ঞেস করতে হবে না। ফুটি কাঁকুড় কি দিয়ে দেবে ? গড়ে বা চিনি কিছই তো নেই। --সো ব্যবস্থার জন্যে তোমার ভাবতে হবে না। সে আমি দেখাচি । আর একটা কথা শোনো। উনি অমন দঃখ, কারচেন বড়ো বয়েসে না খেয়ে মরবেন বলে, তোমাকে একটা ব্যবস্থা করতেই হবে। আমাদের বাড়ী এয়েচেন কেন, একটা হিল্পে হবে বলেই তো । আমি দটাে কাচ্চা-বাচ্চ নিয়ে ঘর করি। বড়ো বামন আমাদের বাড়ী থেকে শািন্ধ হাতে শােধ মাখে ফিরে গেলে অকল্যাণ হবে না ! তা ছাড়া যখন আমাদের আশা করে এতটা পথ উনি এয়োচেন, এর একটা উপায় না করলে হয় ? গঙ্গাচরণ বিরান্ত মাখে বললে-কি উপায় হবে ? খালি হাতে এসেচে। বড়ো ! ও বন্ড ধড়িবাজ । একদিন অমনি কামদেবপর থেকে ফিরবার পথে চালগালো নিয়ে নিলে