পাতা:অশনি সংকেত - বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৭৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


GR अशम-नक७ যদ্য-পোড়া নিজের সততার প্রতি এ রাঢ় মন্তব্যে হঠাৎ বড় অবাক হয়ে উঠে কি একটা প্রতিবাদ করতে যাচ্ছিল, কােপালী-বেী আবার ধমক দিয়ে বলে উঠলো-অামি চলে যাচ্ছি। কিন্তু। সারারাত এ শিমল তলায় তোমার মত মশানের পোড়া কাঠের সঙ্গে দাঁড়িয়ে থাকতি হবে নাকি ? চললাম। আমি যদা পোড়া ব্যস্ত-সমস্ত হয়ে বললে-শোনা শোনা যাস নৌ-বাবা, এ দেখচি ঘোড়ায় জিন দিয়ে-আচ্ছা আচ্ছা-এই দ্যাখা চাল-এই ধামাতে-“এই যে-বাপ রে, কি তেজ ! কােপালী বৌ সদপে বললে-চুপ ! -আচ্ছা, আচ্ছা, কিছু বলচি নে—তাই বলচি যে কােপালী-বোঁ আধাঘন্টা পরে ইটখোলা থেকে বেরলো, অচিলে আধা পালি চাল ! পেছনে পেছনে আসছে। যদ্য-পোড়া । অন্ধকার পথের দ’ধারে আশ-সেওড়া বনে জোনাকি জৰলচে কােপালী-বো তিরস্কারের সরে বললে-পেছনে পেছনে কোন যমের বাড়ী আসচো ? --তোকে একটু এগিয়ে দি --ঢের হয়েচে । ফিরে যাও --অম্প্রধকারে যাবি কি করে ? --তোমার সে দরদে কােজ নেই-চলে যাও— -গাঁয়ের লোক এ পথে আসবে না, ভয় নেই -সে ভয় করি নে আমি। আমাকে সবাই চেনে-তুমি যাও চলে তব্যও যদ্য-পোড়া পিছৰ পিছ আসচে দেখে কােপালী-বোঁ হঠাৎ দাঁড়িয়ে ঝাঁঝের সরে বললে -যাও বলাঁচ-কেন আসচো ? যদা পোড়া আদরের সরে বললে-তুমি অমন কারচো কেন হ্যাঁগো। বলি আমি কি পরা : কােপালী-বেী নীরস কন্ঠে বললে-ওসব কথায় দরকার নেই । তোমাকে উপকার করতে কেউ বলচে না, যাও বলচি, নইলে এ চাল সব ওই খানায় ফেলে দেবো। কিন্তু । যদা পোড়া এবার থমকে দাঁড়ালো। বললে-যাচ্চি, যাচ্চি—একটা কথা --কি কথা ? --চাল আর কিছ আমি যোগাড় করাচি-পরশ সন্দেবোলা আসিস। ーTG リー অনঙ্গ-বেী রান্নাঘরের দাওয়ায় অচল পেতে শায়ে আছে, গঙ্গাচরণ কোথায় বেরিয়েচে - এখনো ফেরে নি। আধ-অন্ধকারে কে একজন দাওয়ার ধারে খাঁটি ধরে এসে দাঁড়ালো, অনঙ্গ-বে চমকে বলে উঠলো-কে ? পরে ভাল করে চেয়ে দেখে বললে-আমরণ ! মাখে কথা নেই কেন ? কােপালী-বেী মাখে অচিল দিয়ে খিলখিল করে হাসচে। অনঙ্গ-বেী বললে-কি মনে করে ? -একটু নন দেবা ? --দেবো । কোথেকে এলি ? അഫ്റ്റ്