পাতা:অষ্টাঙ্গ হৃদয় - বাগ্‌ভট.pdf/১২৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


s8며 ) . সূত্রস্থান। ዓð তাহার অযোগ হইয়া থাকে ; অতএব এই তিন ঋতুতে সংশোধন – ঔষধ প্রয়োগ করিবে না। ॥৩৫ স্বাস্থ্যব্যক্তিদের সম্বন্ধে এই সংশোধন কাল উক্ত হইল। কিন্তু আত্যয়িক রোগে ব্যাধি অনুসারে সংশোধন কাল নির্দেশ করিবে। যদি হেমন্ত গ্ৰীষ্মাদি অতি শীতোষ্ণাদি কালে ংশোধন সাধ্য কোন রোগ উপস্থিত হয়, তাহা হইলে শীতোষ্ণবৃষ্টির, প্ৰতিকার করিয়া অর্থাৎ কৃত্রিম ঋতুগুণ উৎপাদন করিয়া ( য়েমান হেমন্ত কালে গৃহাভ্যন্তরে অগ্নিস্থাপনাদি ও গ্রীষ্মকালে ধারা গৃহাদি করিরা ) সুংশোধনাদি ক্রিয়া করিবে। চিকিৎসা “কাল অতিক্ৰম করিবে: না, কারণ আত্যয়িক ব্যাধি প্ৰাণনাশক হইতে পারে ৷৷ ৩৬৩৭ সম্প্রতি ঔষধ সেবনের কােল কথিত হইতেছে। ঔষধ সেবনের কাল দশপ্রকার ; যথাঅনন্ন ঔষধ সেবন, আহারের অনতি পুর্বে ঔষধ সেবন, আহারের মুধ্যে ও শেষে ঔষধ সেবন, কবিলাস্তরে (দুই গ্রাসের মধ্যে), গ্ৰাসে গ্রাসে (গ্রাসের সহিত মিশ্ৰিত করিয়া), মুহুঙ্গুই ও অন্নের সহিত ঔষধ সেবন, সমুদ্রগ অর্থাৎ আহারের পূর্বে ও পশ্চাৎ ঔষধ সেবন এবং রাত্রিতে শয়ন কালে ঔষধ সুেবন ॥ ৩৮ রোগ যদি প্ৰবল এবং রোগী যদি বলবান হয়, তাহা হইলে কফপ্রধান রোগে অনন্ন ঔষধ প্রয়োগ করিবে ; কারণ শূন্যোদরে সেবিত ঔষধ অতিবীৰ্য্য হইয়া থাকে। অপান বায়ু কুপিত হইলে আহারের অব্যবহিত পূর্বে ঔষধ সেবা। সমান বায়ু প্ৰকুপিত হইলে আহারের মধ্যে ঔষধ সেবন করা কীৰ্ত্তব্য । ব্যান বায়ু বিগুণ হইলে পূৰ্ব্বাই ভোজনের পরে এবং উদান বায়ু প্ৰকুপিত হইল সায়ং ভোজনের শেষে “ঔষধ সেবন, করিবে। প্রাণ বায়ু প্ৰকুপিত হইলে গ্রাস-গ্রাসাস্তরে অর্থাৎ গ্রচুর মিশ্ৰিত ঔষধ দুই গ্রাসের মধ্যে সেবনীয়। বিষ বমি হিকা তৃষ্ণা শ্বাস ও কাস রোগে মুহুর্মুহুঃ ཕྱིས།། সেব্য। অরোচক রোগে নানাবিধ বিচিত্র ভোজ্যের সহিত ঔষধ প্রযোজ্য। কম্প অক্ষেপ হিকা রোগে রোগিকে লঘু ভৈাজনটুকরাইয়া সমুদ্রগ (ভোজনের পূর্বে ও পশ্চাৎ ) ঔষধ সেবন করিতে দিবে। উৰ্দ্ধজক্ৰগত রোগে রাত্ৰিতে শয়ন কালে ঔষধ প্রয়োগ করিবে ৷ -8ર . • অষ্টাঙ্গাহৃদয়ে সূত্ৰস্থানে ক্রিয়োদশ অধ্যায় সমাপ্ত। চতুৰ্দশ অধ্যায়। • অতঃপর দুমামরা দ্বিবিধোপাক্ৰমণীয় অধ্যায় ব্যাখ্যা করিব-ইহা আত্ৰেয়াদি মহর্ষিগণ বলিয়াছিলেন ৷ ১ O O চিকিৎস্ত বিষয়ের বিবিধত্ব হেতু চিকিৎসাও দুই প্রকার। এক প্রকার সন্তৰ্পণরূপ চিকিৎসা ও অপর প্রকার অপতৰ্পণরূপ চিকিৎসা। সন্তৰ্পণের’ পৰ্যায় বৃংহণ এবং অপতৰ্পণের পর্য্যায় লঙ্ঘন। যাহার দ্বারা শরীরের বৃহত্ত্ব হয় তাহাকে কুংহণ এবং যদ্বারা দেহের লাঘব হয় তাহকে লঙ্ঘন বলে। প্রায়ই ভুমি-জলাত্মক দ্রব্য সন্তৰ্পণ এবং অগ্নি বায়ু ও আকাশাত্মক দ্রব্য অপত্যপূৰ্ণ হইয়া থাকে ॥২-৪