পাতা:অষ্টাঙ্গ হৃদয় - বাগ্‌ভট.pdf/১৫৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২১শ অঃ ] সূত্ৰস্থান ১০৭, ক্ৰম করিবে অর্থাৎ প্ৰথমে নাসিকাদ্বারা পশ্চাৎ মুখাম্বারা ধূমপান করিতে হইবে। মুখ DD BBBDBBBD DBDB Dg D BD BDD DBBBD S BDBDD DBBDBD i BDK DBDB দৃষ্টিনাশ তিমিরাঘিরোগ উৎপন্ন হইয়া থাকে। ধূমপান কালে এক একবারে তিনবার করিয়া ধূম গ্রহণ ও ত্যাগ করিবে ; এইরূপ তিনবাবু ধূমপানু করিতে হইবে। ২১শ-১৩ দিবসের মধ্যে স্নিগ্ধধূম একবার, মধ্য ধূম দুইবার এবং শোধন অর্থাৎ তীক্ষুধুম তিন বা চারি বার পান করিবে"। এই ত্ৰিবিধ ধূমের মধ্যে স্নিগ্ধ (প্ৰায়োগিক") ধূমে নিম্নলিখিত দ্রব্য গ্ৰহণ করিতে হয়। যথা-অগুরু, গুগগুলু, মুতা, দ্বেীণোয় ( গোটেলা, ) শৈলেয়, জটমাংসী, বেণামূল, বালা, কলমি দারুচিনি, রেণুক, যষ্টিমধু, বিশ্বমজ্জা, এৰ্লবালুক, সরলনির্যাস, ধূনা, গন্ধ তৃণ, ময়না ফল, কৈৱৰ্দ্ধমুতা, শল্পকী, কুঙ্কুম, মাষকলাই, যব, কুন্দুরুক ( গন্ধদ্রব্য বিশেষ), তিল, আখরোট ও নারিকেলাদি ফলের স্নেহ, খিদির ও অসনাদির সারে বস্নেহ, এবং মেদ মজ্জারসা \S g5 N S 8-Su মধ্য (শমন)'ধূমের দ্রব্য। যথা-শল্পৰ্কী, লাক্ষা, পৃথিকী।’ ( ছোট এলাচ ), পদ্ম, উৎপল এবং বট যজ্ঞডুমুর অশ্বথ, পাকুড় ও লোধ ইহাদের ত্বক, চিনি, যষ্টিমধু, হরিচন্দন ত্বক, পদ্মকাষ্ঠ ও মঞ্জিষ্ঠা এই সকল দ্রব্য এবং কুণ্ঠ ও তগীর বর্জিত গন্ধ দ্রব্য সমূহ গ্ৰহণীয়। তীক্ষা (বিরেচন ) ধূমে নিম্নলিখিত দ্রব্য গ্ৰহণীয়। যথা-লতা ফটকী, হরিদ্র, দশমূল, মনঃশিলা, হরিতাল, লাক্ষা, কাষ্ঠপার্টলা, ত্রিফল, এবং কুষ্ঠতগরাদি তীক্ষ দ্রব্য সকল, শল্পকী প্রভৃতি গন্ধদ্রব্য সকল ও বিড়ঙ্গাপামার্গাদ ਸd শিরোবিরেচন ܕܬ-ܟ݂ܬ | ܘܐܟ Ф ধূমবৰ্ত্তি প্ৰস্তুত বিধি ৭ দ্বাদশাঙ্গুল পরিমিত একগাছি ইষীক ( কুশ বা কাশমূল অথবা শরকাণ্ড) দিবারাক্র জলে ভিজইল্লা রাখিবো। পরে ধূম বিধানোক্ত দ্রব্য সকলু পেষণ করিয়া তদ্বারা পাঁচবাৰু উক্ত ইষীর্ক। প্রলিপ্ত করিবে। এরূপ ভাবে প্রলেপ দিতে হইবে যেন বৰ্ত্তি অঙ্গুষ্ঠবং স্কুল এবং যব মধ্য অর্থাৎ উহার মধ্যভাগ স্থল ও দুই প্রান্ত সূক্ষ্ম হয়। এই বত্তি ছায়াতে শুষ্ক করিয়া অভ্যন্তরস্থিত কুশ বা কাণমূল বাহির কবিয়া ফেলিবে। তৎপরে দৃেহাভ্যাক্ত করিয়া তাহার একপ্ৰান্ত ধূমনেত্রের মধ্যে প্রবেশ করাইরে এবং সুপার প্রাস্তে অগ্নি সংযোগ করিয়া তাহার ধূম পানী করিবে ৷ ২০২১ কাসুরগির ধূমপান বিধি 'দুই খানি শরার মধ্যে ঘূতাদি স্নেহযুক্ত কাসিন্ন ঔষধ রাখিয়া উভরের সংযোগস্থল উত্তমরূপে প্রলিপ্ত করিবে এবং উপরের শরীর মধ্যে একটী ছিদ্র করিয়া উহাতে দৃশাঙ্গুল বা অষ্টাঙ্গুল একটী নল প্রবেশ করাইয়া দিবে। পরে ঐ, শরাবসম্পূর্ট নিধুম অঙ্গরাগ্নিতে স্থাপন করিয়া যখন তাহা হইতে ঔষধের ধূম বাহির হইবে, তপন পূৰ্বোক্ত নল মুখে দিয়া সেই ধূম পান করিবে ॥ ২২ কাস শ্বাস পীনস স্বরভেদ মুখ ও নাসিকার দুৰ্গন্ধ, মুখের পাণ্ডুতা, অকালপকতাদি কেশ দোষ, কৰ্ণ মুখ ও নেত্রের স্রাব, কাণ্ডু, বেদনা ও জড়তা এবং তন্দ্রা ও'fইকা এই সকল রোগ ধূমপায়ীকে স্পর্শ করিতে পারে না। ॥ ২৩

    • খষ্টাঙ্গাহৃদয়ে সুত্রস্থানে একবিংশ অধ্যায় সমাপ্ত।