পাতা:অষ্টাঙ্গ হৃদয় - বাগ্‌ভট.pdf/১৭৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


&qve VR3 ] সূত্ৰস্থান। Sቖፅ: এই রূপে শরীরের অন্যান্ত প্রদেশেও স্থানানুসারে এবং ক্রিয়া সৌকর্য্যাৰ্থ উপায়জ্ঞ চিকিৎসক যথোপযুক্ত যন্ত্র কল্পনা করিবেন ৷৷ ২৯-৩১ * * শরীরের মাংসল স্থানে ঐহিমুখ নামক শস্ত্ৰ শ্ৰীহি পরিমাণে এবং অস্থির টুপরে কুঠারিকা শাস্ত্ৰ যাবাৰ্দ্ধ পরিমাণে নিক্ষেপ করিয়া শিরা বোধ করিবে ॥ ৩২ শিরা সমৃত্যুৰু বিদ্ধ হইলে রক্ত ধারাকারে নিঃক্রত হয়। কিন্তু যন্ত্রমুক্ত হইলে আর স্রাব হয় না। অল্প বিদ্ধ হইলে অলক্ষণ স্রাব করে, অসমৃক বিন্ধ হইলে তৈল ও চূর্ণাওঁষধ প্রয়োগ দ্বারা সশব্দ স্রাব করে, এবং অতিরিদ্ধ হইলে অতিস্রাব করে ও অতিদুঃখে স্রাব বন্ধ হয় ॥৩৩ রক্তস্রাব না হইবার কারণ। ভয়, মূৰ্ছা, যন্ত্রের (বন্ধনের ) শৈথিল্য, ভগ্নশস্ত্র, অতিতৃপ্তিপুৰ্ব্বক ভোজন, দুৰ্বলতা, মলমুত্রাদির সঞ্জাত বেগ ও অর্ষেদ ( স্বেদ ক্রিয়া না করা ) এই সকল কারণে রক্তস্ৰাৱ হয় না। অতএব রক্তস্ৰবি কালে এই সকল বিষয়ের প্রতি দৃষ্টি द्र८ि ॥ ७8 সম্যক্রূপে ‘রক্তস্রাব না হইলে বিড়ঙ্গ, ত্রিকটু, হরিদ্র, তর্গরপাদুকা, গৃহধম (স্কুল), লবণ ও তৈল এই সকল দ্রব্যঞ্জার শিরামুখ প্রলিপ্ত করিবে । রক্ত সম্যক প্রবৃত্ত হইলে ঈষদুষ্ণ তৈল ও লবণ, খিরামুখে প্রয়োগ করিবে। 攀 • রক্ত ও পীতবর্ণ মিশ্ৰিত কুসুম ফুল হইতে যেমন অগ্ৰে পীতবর্ণ স্রাব নিঃক্ৰত হয়, সেইরূপ श्छेःशुद्धे ब्रङ 4 মিশ্ৰিত"ত্থাকিলেও রক্তস্রার কালে প্রথমে দুষ্ট রক্তই স্বভাবতঃ নিঃক্রত হইয়া থাকে। রক্ত সম্যকুরূপ স্রাব হওয়াবু, পর স্বয়ং বন্ধ হইলে’ জানিবে আর দুষ্ট রক্ত নাই। অতঃপর আরু শ্ৰাব করাইবে না। কারণ শুদ্ধ রক্তই জীবন হেতু ॥৩৫-৩৭ রক্তমোিক্ষণ কালে মূৰ্ছা হইলে যন্ত্র খুলিয়া দিয়া ব্যজন দ্বারা বাতাস করিখে, তাহাঁতে রোগী g হইলে পুনৰ্বার রক্তস্রাব করাইবে। কিন্তু তৎপরেও আবার মুস্থিত হইলে সে দিন আর দুষ্ট রত্ন স্রাব করাইবে না। পর দিবসে বা তৃতীয় দিবসে স্রাব করাইবে ॥৩৮ বাত দুষ্ট রক্ত স্তাব বা অরুণ বৰ্ণ, রক্ষ, বেগশ্ৰাবী, স্বচ্ছ ও ফেনিল ; পিত্তদুষ্ট রূক্ত পীত বা কৃষ্ণবর্ণ, আমগন্ধবিশিষ্ট, উষ্ণত্ব হেতু অস্কন্দি (পাতলা) ও ময়ূরপুচ্ছবৎ চন্দ্রক-বিশিষ্ট; ক্যফদুষ্ট द्रद्धं श्रेिधुं °i ধ্রুপর্ণ ভূস্থবিশিষ্ট পিচ্ছিল ও ঘন ; দ্বিদোস দুষ্ট রক্ত উভয় লক্ষণােক্রান্ত এবং ত্রিদোষদুষ্ট রক্ত,পুৰ্ব্বোক্ত ৰিজোম্বলক্ষণান্বিত মলিন ও আবিল (ঘুন ) হইরা থাকে ৷৷ ৩৯||৪০ • রোগী বলবান হইলেও তাহার দুষ্ট-রক্ত এক প্রন্থের (সাড়ে ‘তের পল ) অধিক স্রাব করাইবে না। কারণ অতিরিক্তস্রাবে মৃত্যু বা দীণ বাতিরোগ সমূহ উৎপন্ন হইয়া থাকে। অতিরিক্ত আবে অভঙ্গ, মাংস রস, দুগ্ধ ও রক্ত পান হিতকর । রক্তস্রাবের পর ধীরে ধীরে যন্ত্র অপনয়ন করিয়া শীতল জল দ্বারা খিরামুখ প্রক্ষালিত করিবে। এবং তৈলে তুলা ভিজাইরা তাহা শিরামুখে দিয়া বন্ধন করিবে’। ব্লাবের পরও যদি দুষ্টরিক্তলক্ষণ দেখা যায়, তাহা হইলে সেই দিন অপরাহ্নে বা পরদিন পুঁনিৰ্বার রক্তস্রাব করাইবে। রক্ত অতি দূষিত হইলে রোগিকে স্নেহদ্বারা স্নিগ্ধ রুরিয়া পক্ষান্তে রক্তস্রাব করাইবে। অশুদ্ধ রূক্ত অবশিষ্ট থাকিলে সেই দিন অপরান্ধুে বা পরদিন পুনশ্চ রক্তস্রাব করাইবে। মোটের উপর এক, প্রন্থের (সাড়ে তের পলের ১tio/0 ) অধিক রক্তস্রাব করাইবে না ৷৷ ৪১ -৪৩