পাতা:অষ্টাঙ্গ হৃদয় - বাগ্‌ভট.pdf/২০৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


e, e শারীরস্থান । . pčct না পারা ) এবং শৌৰ্য্য হর্ষ কামাদি রজোগুণজাত এবং ভয় অজ্ঞান নিদ্রা :আলাস্য ও বিষন্নতা sB S SsBS ELD DBDDSS . দেহের মহাভূতময়ত্ব বর্ণিত হইল। এই দেহে ধাতুমদ্বিারা পচ্যমান রক্ত হইতে সপ্তত্বকের উৎপত্তি হইয়া থাকে, যেমন পচ্যমান দুগ্ধ হইতৃে সন্তানিক”(সরের) উৎপত্তি হয়, সেইরূপ দেহে সপ্ত ত্বকু জন্মে। ( সপ্তত্বকের নাম প্ৰথম ভাসিনী, দ্বিতীয়া লোহিনী, তৃতীয়া শ্বেতা, চতুর্থ তাম্রা, পঞ্চমী বেদিনী ষষ্ঠ রোহিণী ও সপ্তমী মাংসধরা। ) { O * রসরক্তাদি ধাতুর আশয়স্থ ক্লেদ সমূহ স্ব স্ব উষ্মা দ্বারা ( যেমন রসধাতুর আশয়ান্তরস্থ ক্লেদ, রসধাতুর উন্মা দ্বারা ) পাক এবং শ্লেষ্মা স্নায়ু ও অপর দ্বারা আচ্ছাদিত হইয়া কলা সংজ্ঞা লাভ করে । এই কুলা কাঠের সারের ন্যার, সমস্তধাতুর্সারের শেষভাগ অল্পব্যহেতু কলা সংজ্ঞা প্ৰাপ্ত হয়। কলা সমুদ্ৰায়ে সাতটি ; যথা-শ্রথম-মাংসধরা, fast রক্তধৰ্ম্ম, তৃতীয়া মেন্দোধরা, চতুর্থ শ্লেষ্মধরা, পঞ্চমী পুীষধরা, ষষ্ঠী পিত্তপরা ও সপ্তমী ‘শুক্ৰধরা। ধাত্বাদির আধারও সাতটী ; যথা-রক্তশিল্প, কফিশিয়, আমাশর, পিত্তাশয়, পকাশয়, বার্তাশয় ও মূত্রাশয়। স্ত্রীলৈাকদিগের গৰ্ভাশয় নামক একটী অধিক আশয় আছে, তাহ পিওঁশয় ও পকাশয়ের মধ্যে অবস্থিত। এই রক্তাদির আধারে কোষ্ঠঙ্গ সকল আশ্রিত। কোষ্ঠাঙ্গ যথা-ঈদয়, ক্লোম, ফুসফুস, যকৃৎ, প্লীহা, శిగా, বৃক্কদ্বয়, নাভি, ডিম্ব, অন্ত্র ও বন্তি ॥ ৯-১২ জীবনের স্থান দশটী ; মস্তক, জিহ্বামূল, কণ্ঠ, রক্ত, হৃদূর, নাভি, বস্তি, শুক্র, ওজঃপদার্থ ও গুহনাড়ী ১ এই সকল দেহাবয়বে বিশেষরূপে জীবন অবস্থিতি করে। সেই জন্য ইহাদিগকে যত্নপূর্বক’ বুক্ষা করিতে হয় ৷ ১৩' * .

  • শরীরের জাল সংখ্যা,১৬, কুণ্ডর ১৬, কূৰ্চ ৬, সেবনী , এই সেবনী মেঢ়, জিহ্বা ও মস্তকে অবস্থিত, শস্ত্রপাতকালে’ ফ্লোবনী বর্জন করিতে হয়। মাংসারজু, ৪, অস্থিসংঘাত ১৪, সীমান্ত ১৮, দন্ত ওঁনখের সহিত অস্থিসংখ্যা ৩৬০ তিনশত ব্যষ্টি, ( জীলকণ্ডরাদির লক্ষণ আয়ুৰ্ব্বেদ-সংগ্রহে দ্রষ্টব্য), 'ধন্বন্তরি বলেন-শরীরে অস্থিসংখ্যা ৩০০ তিনশত এবং সন্ধি সংখ্যা ২১০ ॥, আত্ৰেয় মুনি বলেন—স্নায়ু পেশী ও শিরাশ্ৰিত্ত সন্ধির সহিত মোট সন্ধি ২০০০ দুই সহস্ৰ । স্নায়ু সংখ্যা ৯০ • এবং পেশীর সংখ্যা ৫০০ শত । এতদব্যতীত স্ত্রীলোকদিগের যোনি ও স্তনাশ্ৰিতঁ ২০টী পেশী অধিক আছে৷ ১৪, ১৭ *

হৃদয়ে দশটী প্রধান শিরা আছে, তাহারা সমস্ত শরীরে সর্বদা রূঢ়াত্মক ওজঃ বহন করে। এই দশটী শিরা দ্বারাই শারীরিক মানসিক ও বাঁচিক যাবতীয় ব্যাপার’সম্পাদিত হয় বলিয়া ইহাদিগকে মূলশিরা কহে। যেম্ন বৃক্ষপত্রের শিরা সকল স্থলুমুল ও ক্রমশঃ স্বাক্ষাগ্ৰহইয়া নানারূপে বহুধা বিভক্ত হয়, সেইরূপ। ঐ দশটী মূলশিরাও স্থূলমূল সুন্মাগ্র ও বহু শাখাপ্রশাখায় বিভক্ত হইয়া থাকে । ইহাদের সংখ্যা সপ্তশত ৷ ১৮১৯ সেই সপ্তশত শিরার মধ্যে শাখাতে অর্থাৎ হস্তদ্বয়ে ও ‘পদদ্বয়ে এক শত করিয়া DBD YL tg DBDBD SS S BDBD DBBDBDSELEEE DDD DBBBD D BDD DBBD শিরা, এবং ৩টা করিয়া ১২টী অভ্যন্তরাশ্ৰিত অস্তমুখ শিরা, সমুদায়ে ১৬টি শিরা আছে ; তাহাদিগকে বোধ করিবে না। ২• -