পাতা:অহল্যাবাঈ - মণিলাল বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৩০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S8 অহল্যাবাঈ আমরা স্বপ্নেও ভাবিনি। মহারাণী যদি সেই দিনই নরাধমের প্রাণদণ্ড করতেন, তাহলে বিভ্ৰাট আর এতদূর অগ্রসর হত না। গোবিন্দপন্থ।-অমাত্যগণ । এখন আর তার জন্য আক্ষেপ করা নিস্ফল । আক্ষেপ করবার কাল কেটে গেছে, এখন কাৰ্য্যকাল উপস্থিত। মহারাণী যেরূপ তীব্রভাবে রাঘবদাদার পত্রের উত্তর দিয়েছেন, তাতে যুদ্ধ অনিবাৰ্য্য। তুকাজী -ভাই সব ! মহারাণী অহল্যাবাঈ আমাদের কেবল রাণী নন, —তিনি সমস্ত ইন্দোরবাসীর মাতুঃ শ্ৰী-জননী! রাণীকে রক্ষা করা প্ৰত্যেক ইন্দোরুবাসীর কৰ্ত্তব্য, তার জন্য কারুর প্রাণে উদ্দীপনার সঞ্চার করতে হয় না ; রাণীব নামে প্ৰাণে উদ্দীপনা আপনি আসে,- রাণীর বিপন্ন মূৰ্ত্তি নেপথ্যে প্ৰতিফলিত হলে, বিশ্বব্ৰহ্মাণ্ডের বাধাবিঘ্ন চুরমাব ক’রে প্রজা উঠার কাছে ছুটে যায়।—আমরা সকলে সেই রাজীর ভক্তসন্তান, আমাদের সেই মাতুঃ শ্ৰী-জননী মহারাণী আজ বিপন্ন ; আমরা-ৰ্তার সন্তান । আমরা -প্ৰাণপণে তাকে রক্ষা করব, ইন্দোরেশ্বরীর জয় গানে দিকদিগন্তর মুখরিত হোক--তার বিজয় নিনাদে রাঘবদাদার প্রাণ আতঙ্কে কেঁপে উঠক-তার সমস্ত সৈন্য নৰ্ম্মাদার সলিল-তরঙ্গে তুণের মতন ভেসে যাক । ১ম সেনানী - সত্যই আমরা রাজভক্ত সন্তান ; মহারাণী আমাদের মাতুঃ শ্ৰী-জননী ; তঁর জন্য আমরা সকলে অমানবদনে প্ৰাণ উৎসর্গ করব । ২য় সেনানী।--মহারাণীর জন্য প্ৰাণ দিণ্ডে কেউই কুষ্ঠিত হবে না-এ কথা সত্য; কিন্তু ভাই সব! জিজ্ঞাসা করি।-শুধু কি প্ৰাণ বলি দিলেই আমাদের কৰ্ত্তব্য শেষ হবে? আমাদের সকলের প্রাণ যদি নষ্ট হয়আমাদের শোণিতে নৰ্ম্মাদার অগাধ সলিল রঞ্জিত ক’রেও যদি শত্ৰুসেনার গতিরোধ না হয়, তাহলে তখন কি হবে ? ইন্দোরের সমস্ত