পাতা:অহল্যাবাঈ - মণিলাল বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/৫৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় অঙ্ক ( Σ মনে ক’রে দেখো-তোমার স্বামী সমর ক্ষেত্রে জীবন্মত অবস্থায় পড়ে আছেন-এতক্ষণে হয়তো শৃগাল-কুকুরে তার দেহ নিয়ে টানাটানি করছে তুমি আর এক পল দেরী করে না, আমায় শীঘ্র সেখানে নিয়ে চলো । নারা - স্বাগত ] ঈশ্বর ! তোমার রাজ্যে সৃষ্টির এতো বৈষম্য ! অহল্যাও মানুষ, আমিও মানুষ ; কিন্তু আমাদের দুজনের ভেতর কত প্ৰভেদ। আমি অহল্যাকে মিথ্যা কথায় ভুলিয়ে তার সর্বনাশ করতে এসেছি, আর সে তাইতেই ভুলে আমার জন্য অমানবদনে বিপদের মুখে ছুটে চলেছে! উঃ-কি ভয়ঙ্কর । কি ভয়ঙ্কর । আমি এমন দেবীর সর্বনাশ করতে বসেছি ? সত্যই কি আমি পিশাচী হয়েছি ? নারী হৃদয়ের সমস্ত করুণ প্ৰবৃত্তি কি পিত্ৰালয় ত্যাগ করবার সঙ্গে সঙ্গেই বিসর্জন দিয়েছি। -উঃ-আমি কি হয়েছি! কি হয়েছি। ! অহল্যা।--তুমি দাড়িয়ে দাড়িয়ে একমনে কি ভাবছো ? তুমি কি পাগল হয়েছে ? তোমার স্বামী মরতে বসেছে, আর তুমি এখানে দাড়িয়ে দাড়িয়ে শুধু ভাবছো ! নারা - স্বাগত ] স্বামী ! স্বামী ! তুমি আমার দেবতা, তোমার আদেশ আমার পালনীয় ; তাই অনিচ্ছাস্বত্ত্বেও তোমার আদেশ পালন করতে এসেছিলুম, কিন্তু শেষ রক্ষণ করতে পারলুম না প্ৰভু, আমায় মার্জন করে। আমি এখুনি তোমার ষড়যন্ত্রের জাল ছিড়ে দেব ! অহল্যা -এমন পাগল তো কোথাও দেখিনি টু-দেখ বোন, কক্ষে আমি স্বামীর প্রতীক্ষা কবছিলুম, কিন্তু তোমার বিপদের কথা শুনে, তাকে কিছু না বলেই তোমার সঙ্গে চলে এসেছি। ! তিনি হয় তেঁ এতক্ষণ दिसंब डेविध श्म अभिांब्र भूचीन !-लूमि cष cकन भिछ cगी করছে ; আমি তা বুঝতে পারছি না।