পাতা:আগামীকাল - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/৫০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিষের আশা আকাঙ্খা পরিণ করে কাজের প্রেরণা যোগানোই নারীর প্রথম ও প্রধান কতব্য। অন্ততঃ আমাদের সমাজ ব্যবস্থা একথাই বলে। সাধ্য থাকলে আমিও আপনার বা রমেন-এর ভালবাসার মাল্য দিতে ছটে যৌতুম। নিজেকে তিলে তিলে নিঃশেষে বিলিয়ে দিয়ে তিলোত্তম হাতুম। কিন্তু সে-সাধ থাকলেও তিলমাত্র সাধ্যও আমার নেই, বিশ্ববাস করন। জলধি জিজ্ঞাসা দটি মেলে মণিমালার দিকে তাকিয়ে রইল। অত্যুগ্র আগ্ৰহান্বিত হয়ে এবার বললে। মণি, পাগলের মত তখন থেকে কী সব বলে যােচ্ছ, মাথা মাড় কিছই ব্যবছি নে! আমায় না হয় বঞ্চিত করলে, কিন্তু রমেন, এককড়িদা কারো কাছেই কি কোনদিন ধরা দেবে না ? চিরদিনই কি এমন আলেয়ার মত পালিয়ে পালিয়ে বেড়াবে মণি ? ঐ যে বললাম, প্রেম মানষেকে সত্যই অগাধ করে দেয়। বললেও শোনে না, বাঝালেও বািকতে চায় না। কি করে যে আপনাদের অন্ধত্ব ঘাচাই ব্যবছি না ! মণি, একটা খোলসা করে বলো, আমি যে আমার ইহকাল পরকাল সবসব তোমারইজলধিকে কথাটা শেষ করতে না দিয়েই মণি বলে উঠল, জলধিবাব, বলতে পারেন, পথিবীতে এমন কোন যাবতী রয়েছে, যে পরিষের বাঁকা-চোখের চাহনি, একটি ভালোবাসার প্রত্যাশায় লালায়িত নয় ? এমন কোন মেয়ে কি রয়েছে, যে পরিষের একটি খোসামোদ, একটু আধটা পিছনে লােগা পছন্দ করে না ? কিন্তু আমি এসব এড়িয়ে চলতেই বেশী উৎসাহী। কিন্তু কেন ? অন্য দশটা মেয়ের মত আমার দেহটাও কি রক্ত-মাংসে গড়া নয় ? আমার বকের ভেতরটা কি তবে নিরেট পাথর দিয়ে তৈরী ? তা ও তা নয় । তবে কেন আমি পরিষ মানষ থেকে নিজেকে দরে দরে সরিয়ে রাখতেই বেশী উৎসক ? কয়েক মহন্ত নীরবে অপেক্ষা করে মণি এবার বললে, থাক । আমি জানি একথার উত্তর আপনি কিছতেই দিতে পারবেন না। আমিই বলছি শনিন জলধিবাব। ওকে থামিয়ে দিয়ে জলধি বললে, থাক, আমার আর শনে কাজ নেই মণি ৷ তোমার পাঁচালি শোনার মত সময় ও ধৈব-কোনটাই আমার নেই। ছাতাটা হাতে নিয়ে চেয়ার ছেড়ে উঠতে উঠতে এবার বললে, তোমার কুম্ভীরাশ্রতে বরং রমেন আর এককড়িদাকে ভোলাতে চেষ্টা কোরো। আমার হাতে অনেক কাজ। আমি চললাম। মণি যন্ত্রচালিতের মত জানালার কাছ থেকে ছটে এসে জলধি'র পঞ্চ-আগলে দাঁড়িয়ে বললে, না, জলধিবাব, আপনি যেতে পারবেন না। আমার সব কথা না শনে আপনার ধাওয়া চলবে না। কিছুতেই যেতে পারবেন না। জলধি অসহায়ভাবে ধপাস করে বসে বললে, এক ঝকমারীতেই না পড়া গোল রে বাবা । এসে দেখছি, গরু-চোরের মত বেধে পিটতে চাইছে । এবার মণি'র দিকে মািখ তুলে বললে অবে তোমার মোন্দা কথা ত এটাই, কাউকে বিয়ে করবে না কোনদিন, tD DSS BDB DDD DDD DBDS DB BBBBD D BDD DBBD DD DS