পাতা:আগামীকাল - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/৬৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছোপ ফটিয়ে তুলে আবার ঘাড় ঘরিয়ে আতুর ঘরের দরজার দিকে অকালেন। মণি এবার বললে, সকল্যাণীদি, দয়া করে অন্যািমতি দিলে আমি একবারটি চোটা করে দেখি । সকল্যাণী মিটারের মখে বিরক্তির ছাপ ফটে উঠল। তিনি মচিকি হেসে বললেন, ঠিক আছে দেখি তবে চেন্টা করে । পাশেই দেয়ালে হেলান দেয়া একটা সাইকেল ছিল । মণি ব্যস্ততার সঙ্গে সাইকেলটা টেনে আনতে আনতে বললে, সাইকেলটা করি ? নিয়ে যাচিছ, মিনিট দিশেকের মধ্যেই ফিরে আসব । কেবলমাত্র অন্যান্য সদস্যারাই নয়, মণিকে দ্রুত গতিতে সাইকেল চালিয়ে চলে যেতে দেখে ওর বান্ধবী এনা। আর হেনাও কম স্তম্ভিত হ’ল না। মণি যে পরিষের মতই সাইকেল চালাতে দক্ষ চাবপেনিও কেউ ভাবতে পারে নি । কী আশ্চর্য ব্যাপাররে বাবা! প্রসতি আতুরঘরে পড়ে কাংড়াচেছ, আর মণি চেন্ট করে দেখবে বলে সাইকেল চেপে কোথায় উধাও হয়ে গেল ? মণি মিনিট দশোকের সময় নিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ফিরে এল ঠিক আট মিনিটের মাথায় । সদর দরজা দিয়ে ঝড়ের বেগে ভেতর-বাড়িতে ঢাকে সাইকেলটকে সশব্দে দেয়ালে হেলেন দিয়ে রেখে হাতে গলাবাস পড়তে পড়তে ব্যস্তু-পায়ে আতুর ঘরের tes এগিয়ে গেল । স, fল্যাণী মিটার ছটে ওর কাছে এলেন । কিছ বলার চেণ্টা করলেন। মণি ওকে কিছু বলার সংযোগ না দিয়েই সোজা আতুরঘরে ঢাকে সশষেদ দরজাটা বন্ধ করে দিল । সকল্যাণী মিটার মণি'র ওপর পাত্রবধর প্রসবের দায়িত্ব দিয়ে কিছুতেই নিশিচনত হতে পারছেন না । নিজের কাজের জন্য মনে মনে অন্যতপ্ত হতে লাগলেন। ভাবলেন, দীঘদিনের অভিজ্ঞ ধাত্রী যেখানে অক্ষমতা জানিয়েছে সেখানে অমন অনভিজ্ঞা একটি মেয়ের কথায় সম্পমতি দেয়া মোটেই উচিত হয় নি। কি করতে, কি করে বসবে, শেষ পর্যন্ত গাছ ও ফল দ'-ই হারাতে না হয় । তাছাড়া শহরে গাড়ী পাঠানো হয়েছে। ডাক্তার নিয়ে ফিরতে দেরী হবে ঠিকই। ইতিমধ্যে রোগী কন্টও পাবে যথেষ্ট। কিন্তু আনাড়ির হাতে মরার চেয়ে অচিকিৎসায় মরা অনেক ভাল। অন্ততঃ নিজের ভুলের জন্য অন্যশোচনায় দশোধ মরতে হবে না । উঠোেনভতি লোক। নারী-কল্যাণ-সমিতির সদস্যারা কেউ বাড়ি যান নি। সবার মােথই উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার ছাপ সম্পন্ট। একে অন্যের মাখের দিকে নীরব চাহনি মেলে তাকিয়ে রইল । DBDDBD BBDBDD DD DBBDB DuDS BDB BBBBD D LLu uBSDD থরথরিয়ে কপিছে, মাথা কিমিঝিম করছে। তিনি পাশের বারান্দায় কপালে হাত দিয়ে বসে পড়লেন । হেনা দৌড়ে ঘর থেকে একটা পাখা এনে ওকে হাওয়া করতে লাগল। R