পাতা:আগামীকাল - শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.pdf/৯২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মণি বারণ করে আমায় পাঠিয়েছে। এককড়িদাকে বলে ও অজয় বাবর ওপর আপনার কাজের দায়িত্ব দিয়েছে। আজ। আপনার ফলে রেমন্ট। বাবলেন মশাই, কিহুতেই মেসের বাইরে যাওয়া চলবে না। আমার জরুরী কাজ আছে, আমি ঘণ্টা খানেন্মের মধ্যেই ফিরছি। মণিও সকালেই একাধারটি আসবে বলেছে । এনা। জলধি'র কাছ থেকে বিদায় নিয়ে চলে গেল । এদিকে নারী-কল্যাণ-সমিতি এবং সর্বদেশ-কল্যাণ-সমিতির পারস্পরিক সহযোগিতার গঠনমািলক কাব্যাদি দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। মণি উদ্যোগ নিয়ে চাঁদা সংগ্রহ করে সহর থেকে পনেরটি চরকা আনিয়ে ইতিমধ্যেই পনেরটি পরিবারকে দিয়েছে । কয়েক দিনের মধ্যে পাঁচটি তাঁতও আসার কথা। গ্রামের মানষের ক্ষধা নিবত্তির উপায় করে না দেয়া পর্যন্ত কেবলমাত্র গরম গরম বস্তুতার মাধ্যমে ত আব অর্থনৈতিক উন্নতি সম্ভব नक्ष, शे विषtझ 3द्र छाव्ट्रे छान ग्राळू ; মণি বাড়িতে বাড়িতে ঘরে চরকার ব্যবহার সাক্ষৰূদ্ধে গ্রামবাসীদের প্রশিক্ষণ দিয়ে বাসায় ফিরছিল । এমন সময় দেখল, পথের বাঁকে ভাঙা শিব-মন্দিরের বারান্দায় বসে। কে একজন লোক । বসে বিড়ি ফ’কছে । ওকে দেখেই সচকিত হয়ে নড়েচড়ে বসিল । লোকটা এ-গ্রামে বা ধারে কাছে কোথাও থাকে বলে মনে হ’ল না। গ্রামের সবার মািখ ওর চেনা ! তবে এ-ও মনে হ’ল কোথায় যেন দেখেছে ওকে । এবার মনে পড়েছে, ডায়মন্ডহারবার থেকে ফেরার পথে ট্রেনে এ-অবাঞ্ছিত ও লোকটি মাখোমখি বসে হাঁ করে ७द्म भाथद्ध प्रिय उाविमर्शछल । জলধি'র মেসে গিয়ে মণি ওকে ব্যাপারটা বললে। মাহত মাত্র দেরী না করে জলধি শিব মন্দিরের কাছে ছটে এল। কিন্তু ভোঁ ভাঁ, পাখী পালিয়েছে। হতাশ মনে ও আবার মেসে ফিরে এল । জলধি বললে, মণি আমার মনে হয় নচছাডুটা নিঘাৎ টিকটিকি। তোমার সম্পত্রিাসবাদী কার্যকলাপ সম্বন্ধে সস্থানীয় থানা হয়ত কিছু অনামান করেছে । মণি আরাম কেদারায় গা-এলিয়ে বসেই তচিছল্যের সঙ্গে বললে, অনমান ত অনেকেই অনেক কিছু করতে পারে জলধিদা। কে, কি অনামান করল এনিয়ে ভেবে নািট করার মত সময় কোথায় । তবে আমাদের ধারণা ভুলও হতে পারে। তব কয়েকটা দিন একটা সতক থেকে । মণি আর প্রসঙ্গটাকে দীঘ করতে দিল না। সাইকেল নিয়ে পথে নামল। দাপরের দিকে জলধি ওর প্রাথমিক বিদ্যালয় তৈরীর কাজ তদারক করছে। এনা বাড়ি ফেরার পথে ওর কাছে এল । বেশীক্ষণ দাঁড়াল না । কয়েকটা মামল কথা BB D DDSSS SYBOD DBDSBDD DBB BSDL S DBD BDBDD BBB LL কাছে চেপে গেল। মেয়েদের পেটে কথা হজম হয় না। যতই নিষেধ করা যাক না কেন, ইচছায় হোক, অনিচন্থায় হোক দশ কানে দেবেই । SO