পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/১০৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


可西夺计可叶可粤可分颈 যে, বিপিন মুদীর দেকানে দুর্গোৎসবের ধারটা সে এখন ঘরের পয়সা দিয়ে মিটিয়ে দেবে বলেনি, কয়েকজনের কাছে তার যে টাকাটা পাওনা আছে সেটা পেলে তখন মিটিয়ে দেবে। এ কি কথা বলা ? আলাপ করা ? এভাবে কথা বলার চেয়ে মুখ বুজে থাকা কি ভাল নয় ? কৈলাস কখনো কোথাও চার আনার বেশী চান্দা দেয় না, কোন উপলক্ষেই নয়। অন্তত পাঁচ টাকায় বিক্ৰী করা চলে এমন কিছু বাধা না দিলে পাঁচটা টাকা ধারা পৰ্য্যন্ত দেয় না। পাড়ায় যে থাকে, যার ছেলে সহরে একশ’ টাকা বেতনে চাকরী করে, তাকে পৰ্য্যন্ত নয় ! হাসি মুখে আবার বলে যে, এভাবে টাকা ধার না দিলে শোধ করার কথাটা কারও মনে থাকে না, শোধ করার চেষ্টাও থাকে না । সকলের চোখের উপরে নিজের খুসীমত সে একটি ছোট পাকা বাড়ী তুলেছে— ক’খানা এবং কতবড় ঘর করা উচিত, দরজা জানালা কি রকম হলে ভাল হয়, এসব বিষয়ে কারও একটা পরামর্শও কাণে তোলেনি। পথ সংক্ষেপ করতে সকলে পায়ে পায়ে তার জমির উপর যে পথটি গড়ে তুলেছিল, বিনা দ্বিধায় তার উপর রান্নাঘর তুলে পথটা বন্ধ করে দিয়েছে। অনুযোগ অভিযোগের জবাবে হাসিমুখে বলেছে, কয়েক গজ বেশী হঁাটা মানুষের পক্ষে সমান কথা । পঞ্চাশ হাত তফাতের পথটাতেই যখন কাজ চলে সে কেন অন্য যায়গায় রান্নাঘর তুলে অসুবিধা ভোগ করবে ? কেদার ঘোষাল সকলকে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছিল, কিন্তু কেউ সাহস করেনি। অন্য লোকে হয়তো মামলার নামেই একটা 'Yo 8