পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/১১৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বা থািপ র ও ভীরু র ল ডু ই ইঙ্গিতটা সুস্পষ্ট। কেদার অবজ্ঞাভিরা তামাসার সুরে বলল, “আপনি পারেন? দেখুন না একবার চেষ্টা করে।’ O কৈলাস গম্ভীরভাবে বলল, “তাই ভাবছি। তবে ঢুকতেই ষা হাঙ্গামা, ভাবতেও ভয় করে । আপনার তো সব জানাই আছে!’ কেদার আশ্চৰ্য্য হয়ে বলল, “বলেন কি মশায়, আপনি এবার কৈলাস সায় দিয়ে বলল, “দেখি একবার চেষ্টা করে। আপনি এক কাজ করুন না, আপনি নিজে না ঢুকে আমায় ঢুকিয়ে দিন না ? প্ৰস্তাব শুনে সকলে স্তম্ভিত হয়ে বসে রইল। কৈলাসের মতো স্বার্থপর মানুষের পক্ষেও কি এমন একটা খাপছাড়া প্ৰস্তাবকে স্বাভাবিক মনে করা সম্ভব ? সেদিন সন্ধ্যার সময় কৈলাস বাড়ীতে বসে আছে, দু’টি কিশোর তার সঙ্গে দেখা করতে এল। কৈলাস দেখেই চিনতে পারল, সকালে তারা কেদারের বৈঠকখানায় বসেছিল। “কী মনে করে ভাই ?” “আপনার সঙ্গে একটু কথা বলতে এলাম।” তখনও নির্বাচনের মাস ছয়েক দেরী ছিল । কিন্তু ধরতে গেলে সেদিন হতেই দু’জনে লড়াই সুরু হয়ে গেল । নির্বাচনের মাসখানেক আগে দেখা গেল। লড়াইট বেশ জমজমাট হয়ে উঠেছে। প্রথমটা কৈলাসের বোকামিতে সকলে অবাক হয়ে গিয়েছিল, ভেবেছিল G (t