পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/১২১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বৰা থৰ্থ পা র ও ভীরু র ল ডু ই গিয়েছে, কিন্তু গরীবদের পাড়ায় যাতায়াতটা সে বড়িয়ে দিয়েছে অনেক । এমনিভাবে যখন দিন কাটছে, নির্বাচনের অর বাকি আছে মোটে তিনটে দিন, একদিন বিকেলে ওই গরীবদের মধ্যে একটা দাঙ্গাবাধিবার উপক্রম দেখা গেল। উপলক্ষটা একটু খাপছাড়া। নকুড়ের বাড়ীর কাছে একটা ফাকা মাঠ আছে। কেদার আর কৈলাস দুজনের দলের কৰ্ম্মীরাই গরীবের পাড়ায় পাড়ায় বলে এসেছিল বিকেলে যেন সকলে ওই মাঠে জমা হয় । এই মাঠে এসে কেদার ও কৈলাসের কথা শুনবার জন্য আগেও কয়েকবার তাদের ডাকা হয়েছে কিন্তু একদিন এক সময়ে দুজনের কথা শুনবার জন্য নয় ! নির্বাচন নিয়ে ভদ্রলোকদের পাড়ার উত্তেজনা গরীবদের পাড়াতেও যথেষ্ট পরিমানে সংক্রামিত হয়েছিল । বহুলোক মাঠে এসে জড়ো হয়েছে। তারপর কী ভাবে যেন অনুপস্থিত কেদার আর কৈলাসকে নিয়ে দাঙ্গা বান্ধবার উপক্রম হয়েছে। সভা আহবানের ভুলটা প্ৰায় শেষ মুহূৰ্ত্তে টের পেয়ে কেদার ও কৈলাস সভায় আসেনি। দুজনেই পরম উদারতার সঙ্গে অপরকে সভায় কথা বলার সুযোগটা দান করেছে। কিন্তু পরস্পরে উদারভার খবর না পাওয়ায় দু’জনের একজনও সুযোগটা গ্ৰহণ করার সুযোগ পায়নি । খবরের জন্য উৎসুক হয়ে কৈলাস ঘরে বসেছিল । হিন্তদন্ত হয়ে নকুড় ও একটি ছেলে এসে দাঙ্গাহাঙ্গামার সম্ভাবনার খবরটা দিল । শুনে জুতা পৰ্যন্ত পায়ে না দিয়ে ফতুয়া গায়ে কৈলাস ছুটে গোল S)