পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/১৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ख्ां ऊँ द्र् द्वौ भ्र इ' 'g । । ६ মনে আসে : ছেলেটা তার ছিল সাত মাসের রামপদ যখন বিদেশ যায়। এটা বলার কথা । মুক্ত বঁাচে । O “খোকন গেল কুপথ্যি খেয়ে। মাই-দুধ শুকিয়ে গেল, এক ফোঁটা নেই। চাল গুড়িয়ে বালি মতন করে দিলাম। ক'দিন। চাল ফুরলে কি দিই। না খেয়ে শুকিয়ে মরবে। এমনিতে, শাকপাত যা সেদ্ধ খেতাম, তাই দিলাম, করি কি ! তাতেই শেষ হল।” না কেঁদে ধীর কথায় বিবরণটা দেবে ভেবেছিল মুক্ত, কিন্তু তা কি হয়। আগে পারত, না খেয়ে যখন ভোতা নিজীবি হয়ে গিয়েছিল অনুভূতি। আজ পুষ্ট শরীরে শুধু ক’মাসের অকথ্য অভিজ্ঞতা কেন বোধকে ঠেকাতে পারবে ? গলা ধরে চোখে জল আসে মুক্তা’র। ‘শেষ দু’টাে দিন যা করলে গো পেটের যন্ত্রণায়, দুমডে মুচড়ে ধনুকের মতো বেঁকে—” মুক্ত এবার কঁাদে । ‘কেউ কিছু করলে না ? “দাসমশায় দুধ দিতে চেইছিল, মোকেও দেবে খেতে-পরতে। তখন কি জানি মোর আদেষ্টে এই আছে ? জানলে পরে রাজী হতাম, বাচ্চাটা তো বঁাচতো । মরণ মোর হলই, সে-ও মরাল।” চোখ মুছে নিজেকে সামলাতে চেষ্টা করে মুক্তা। এবার কৈফিয়ৎ দিতে হবে। কেঁদে ককিয়ে দরদ সে চায় না, সুবিচার চায় না। সব জেনে যা ভালো বুঝবে করবে। রামপাদ, যেমন তার বিবেচনা হয়। “খোকন মরল, তোমার কোন পাত্তা নেই। দাসমশায় রোজ পাঠাচ্ছে নেড়ীর মাকে। দিন গেলে একমুঠো খেতে পাই নে।