পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/৫৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


दू ऎौ আয়ােজন হচ্ছে। মামাবাড়ীর দরজায় তাকে নামিয়ে দিয়ে রাখাল চলে আসবে, তারপর যা হবে তা বুঝবে মেনকা আর তার AAN মেনকা কিন্তু যেতে নারাজ। মামাবাড়ীতে শুধু মারধোর আর ছ্যাক দেওয়ার ভয় থাকলে কথা ছিল না, মামাবাড়ীতে তাঁকে ঢুকতেই দেবে না। সে জানে। দরজা থেকেই তাকে পথে নামতে হবে। মেনকা তাই হাপুস নয়নে কঁদে আব্ব বলে, “আমি কোথা যাব ? কার কাছে যাব ? রোয়াকে বসে বুড়ী ডাকে, “এই ছুড়ি, শোন ।” মেনকা কাছে এসে দাড়ায় । “কঁাদিস কেন হাপুস চোখে, যোয়ান মন্দ মাগী ? “আমায় তাড়িয়ে দিচ্ছে গো ।” “তাড়িয়ে দিচ্ছে ? কে তাড়িয়ে দিচ্ছে ? তাড়িয়ে দিলেই তুই যাবি ? তোর শ্বশুর ঘর, কে তাড়াবে তোকে ?” মেনকা চুপ করে থাকে। “মোকে পেরেছিল তাড়াতে ? একরাত ঘর করিনি সোয়ামীর, বিয়ের রাতে ছটফটয়ে মোলো। সবাই বলে, দূর দূর, আলুঙ্গুণে বোঁ । বিয়ে হল, সোয়ামী খেয়ে কুমারী র’ল, একি মেয়ে গা ? দূর! দূর । আমি গেলুম ? মাটি কামড়ে রইলাম। এখানকার। পারল কেউ তাড়াতে মোকে ? অ্যাদ্দিন তুই সোয়ামীর সাথে শুলি, বাড়ীর বেী হয়ে র’লি, তোকে যেতে বললে তুই যাবি ? মাটি কামড়ে থাক। খুটি আঁকড়ে थांक ।' (