পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/৭০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


四t西夺t可叶可°可引颈 ঘোষাল। হনাহনিয়ে বাড়ীর মধ্যে এসে মুখে হাত চাপা দেওয়ার মতো ব্যস্ত বিহবল মানায় তাকে থামিয়ে দেয়। “থাম ছুড়ি, থাম। কে গিয়ে খবর দেবে, মরবি যে তখন ? “ঠিক। সবার হাঁড়ির খবর যাচ্ছে, অবাক কাণ্ড।’ “ভূষণ শালা একজন, ওবাড়ীর ভূষণ মাইতি।” অধর ব্যাকুলভাবে ধমকে বলে, “থাক না বাবা, থাক না। অভ দিয়ে কাজ কি তোদের, চুপ মেরে থাক না ?” “চুপ মেরেই তো আছি গো বাবু। বোবা বনে গেলোম।” বলে মঙ্গলা এতক্ষণে পিড়ি এনে অধর ঘোষালকে বসতে দেয় । 'না, আর বসব না।” বলে অধর ঘোষাল উবু হয়ে বেশ জাকিয়ে বসে । অধর রোগ, ঢ্যাঙ্গা, চিকণ শ্যামবর্ণ। চুলে সবে পাক ধরেছে কিন্তু ভুরু একেবারে সাদা। শীর্ণতা, লম্বা গলাবন্ধ কোটি আর পাকা ভুরুর জন্য তাকে ভারি হিসেবী, বিষয়ী ও বিবেচক মনে হয়। “বলতে তো ভরসা হয় না তোদের, পেটে কথা রাখতে পারিস নে । বলে বেড়াবি দশজনকে ৷” কিছু বলতে চায় বুড়ো। পেটে কথা চেপে রাখতে পারছে না। তাই এমন মুখের ভঙ্গি করেছে যেন তাদের অবিশ্বাস করেও অনুগ্ৰহ করার জন্য ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিশ্বাস করছে। অধরের কথা আর ভঙ্গিতে গা জ্বলে যায় মঙ্গলার । ‘সুদেব আর ভূদেব কাল রাতে এয়েছিল। মরমর মাটিাকে afs(\S ' Q9