পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/৭৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


म अ वा 'छिल ।' তখন মঙ্গল উঠে বসে। বলাই আর গোলককে বলে, “তোমরা বসে থাকে, এখুনি আসছি।” কষ্টে দাওয়া থেকে পা নামিয়ে বলাই-এর দিকে হাত বাড়িয়ে বলে, ‘ধরে নিয়ে চল দিকি ভাই আমাকে একটু। চটপট চল। থামো বাবু তােমরা,ফিপরদালালি কোরো না, যা বলছি শোন ।” বলাই-এর ঘাড়ে ভর দিয়ে ফোলা পা-টা টেনে টেনে মঙ্গলা বাইরের কুয়াশায় বেরিয়ে যায়। কুয়াশা গোয়ালের খড়ের ধোঁয়ায় ভারি হয়েছে। “কোথা যাবে ?” “চল না। দাদা।” মঙ্গলা কাতরে ওঠে। অধরের বাড়ী পৌছে মঙ্গল ভেতরে যায় না, বাড়ীর সামনে কদম ‘গাছটার তলে দাড়িয়ে থাকে। বুলাই ডেকে আনে অধরাকে । শোনেন । খপর আছে ।” লণ্ঠনের আলোয় তার মুখের চেহারা দেখে অধরের সাদা ভুরু কুচকে যায়। সেই লণ্ঠনের আলোতেই মঙ্গলা অধরের সদরের ঘরের জানালায় দেখতে পায় ভূষণ মাইতির মুখ।

  • ওরা আজ গায়ে আসছে, ধরা দিতে। সব ক'জনা আসছে।” ‘ধরা দিতে আসছে ? “হা, সব ক'জনা । গোলোক এসেছিল, মোকে বলে গেল।” “অ, তা গোলোক চলে গেছে নাকি ?” ‘আসবে ফের। মোর কাছে থাকবে। বললে কি, আজ রাতটা

vo