পাতা:আজ কাল পরশুর গল্প.pdf/৮৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(マび7 d বাড়ীর ঠিক মাঝখানে উঁচু চাচের বেড়া। খুব লম্বা মানুষের মাথা ছাড়িয়েও হাতখানেক উঁচু হবে। বেড়া ডিঙিয়ে কারো নজর চলবে না, অবশ্য যদি উচু কিছুর উপর দাড়িয়ে নজর চালানো না হয়। নজর দেবার অন্য উপায় আছে ; ফুটোতে চোখ পাতা। বাড়ীটাকে সমান দু’ভাগ করেছে বেড়াটা, পশ্চিমের ভিটার লম্বা দাওয়া ভাগ ক’রে, উঠান ভাগ ক’রে সদরের বেড়ার চার হাত ফাকের ঠিক মাঝখান দিয়ে খানিক এগিয়ে বাড়ীতে ঢুকবার এই ফাক আড়াল ক’রতে দাড় করানো সামনের পর্দা-বেড়াটার ঠিক মাঝখানে গিয়ে ঠেকেছে। আগে, প্ৰায় সাত বছর আগে, গোবৰ্দ্ধন ও জনার্দনের বাপ অনন্ত হাতী যখন বেঁচে ছিল, তখন বাড়ীতে ঢুকবার পথ ছিল একটা দক্ষিণপূব কোণে। এই পথের সামনেও বসানো ছিল একটা আড়াল করা পর্দা-বেড়া। ভাগের সময় পথটা পড়েছিল জনাৰ্দনের ভাগে । সদরের বেড়ার আরেক প্রান্তে, অর্থাৎ উত্তর-পূব কোণে বেড়া কেটে নতুন একটা প্ৰবেশ-পথ করে নিতে অত্যন্ত অসুবিধা থাকায় গোল বেধেছিল। ঢুকবার-বেরোবার পথই যদি না থাকল, বড়ীর এমন ভাগ দিয়ে সে কী করবে-গোবৰ্দ্ধন প্ৰতিবাদ জানিয়েছিল। মালিকদের মানতে হয়েছিল যে তার আপত্তি সঙ্গত। অনেক মাথা ঘামিয়ে by