পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১২৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বুঝিয়াছি, প্ৰেম, ফ্রেম বড় কাজের কথা নয়, এক মূহুর্তে হয়, এক মূহুর্ভে যায়। ভক্তিত্ব উপর প্রতিষ্ঠিত না হইলে উহাতে তেমন কাজ হয় না । ভক্তির অভাবে প্ৰেম পবিত্র হয় ODSDBuBD BB sBYD DYKzDYBDL BB DBS SDuDBB DB DDDD sLsLB ভক্তিমূলক, রামচন্দ্রের সহিত সীতার প্ৰেম ভক্তিমূলক, দুষ্মন্তের সঙ্গিত শকুন্তলার প্ৰেম ভক্তিমূলক, পাণ্ডবদের সহিত দ্ৰৌপদীর প্ৰেম ভক্তিমূলক, দার্শনিক মিলের সহিত কুমারী হেলেন টেলরের প্ৰেম ভক্তিমূলক । বৰ্তমান বাঙ্গালা সাহিত্যে বর্ণিত প্ৰেম ভক্তিমূলক নয়, লালসামূলক। বাঙ্গাল কবিতা ও উপন্যাসে ভক্তিমূলক প্রেম বৰ্ণিত হইলে, বাঙ্গালা সাহিত্য সাহিত্যের মধ্যে উচ্চতম ও অদ্বিতীয় হইবে। চক্ষু বুজিয়া ভাবিতে ভাবিতে বাল্যকালের যে সকল কথা এবং অধিক বয়সের হিতৈষীদিগের যে সকল কথা মনে উঠিয়া মন সুখে ও আনন্দে ভয়াইয়া দেয়, অনেকেরই ভাগ্যে সেরূপ ঘটনাদি হইয়াছে এবং হইয়া থাকে। অতএব পৃথিবীতে সুখ বা আনন্দ নাই বলিয়া কাহারও দুঃখ করিবার বা বিধাতার উপর দোষারোপ করিবার কারণ নাই। এই যে এখন একটা সুর উঠিয়াছে যে জগৎ দুঃখময়, ইহাতে DBB DDDYiB DDBDB BBD DiBDB DKYSSS S BBBBD DBDDBBDBD DDD DBBDDBDDD করিয়া জগতে ঈশ্বরপরায়ণতার খর্বতা করিতেছে। ঈশ্বরপরায়ণতাৱ। খৰ্ব্বতাতে শুধু নাস্তিকতা বাড়ে তা নয় স্বার্থপরতা এবং মানবের মধ্যে অসম্ভাবও ঘটে। চক্ষু বুজিয়া reverieতে যেরূপ পুরাতন কথা পাইয়া এত সুখ ও আনন্দ উপভোগ করিয়াছি এবং করি, বিনা আয়াসে সকলেই সেইরূপ পুরাতন কথা পাইয়া অতুলনীয় সুখ ও আনন্দ উপভোগ করিতে পারেন, এখন বোধ হয় বলিতে পারি যে, ইংরাজীতে যাহাকে reverie বলে বাঙ্গালায় তাহাকে রোমন্থন বলিলে ভুল করা হয় না । রোমন্থক জন্তুদিগের রোমন্থনের প্রকৃতি দেখিলে বোধ হয়। প্ৰথম গ্ৰাস অপেক্ষা রোমন্থনের গ্ৰাস তাহদের বেশী মিষ্ট লাগে। আমিও দেখিলাম, বাল্যকালের সেই আনন্দ অপেক্ষা বৃদ্ধ বয়সের সেই আনন্দের রোমন্থন বেশী আনন্দজনক। কিন্তু বাল্যকালে আমি গ্রামে থাকিয়া যেরূপ আনন্দভোগ করিয়াছিলাম, এখনকার ছেলেদের সেরূপ আনন্দোপভোগের আর উপায় নাই। কারণ ম্যালেরিয়া প্ৰভৃতির জন্য পল্লীবাস আর আমাদের নাই বলিলেই হয় । সুতরাং আমাদের ছেলেদের পল্পীজীবনও নাই। পল্পীজীবনের অভাবে আমাদের কি সৰ্ব্বনাশ হইতেছে তাহা বোধ হয় এখন আর কাহারো বুঝিতে বাকী রহিল না। সহর ছাড়িয়া যাহাতে আবার পল্লীতে বাস করিতে পারি অপর সমস্ত কাজ ফেলিয়া রাখিয়া আমাদের সকলেরই এখন প্ৰাণপণে সেই চেষ্টা করা আবশ্যক হইয়াছে। এ চেষ্টা ফলবতী করিতে হইলে আমাদের বর্তমান শিক্ষা প্ৰণালীর আত্মকথা-৪