পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৭৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছাদে আর একজনকে ঢালাই করাই-প্রকৃত গুরুমুখী এবং গুরুমুখী শিক্ষাই শিক্ষা । বালকের শিক্ষা অনুকরণ ; গুরু ভাল হইলে, সেই শিক্ষা যত গুরুমুখী হয়, ততই প্ৰবলা ও উজ্জ্বলা হয়। অতএব প্ৰথম কথা শিক্ষা গুরুমুখী হওয়া চাই এবং সেজন্য গুরুর সাহচৰ্য্য একান্ত বাঞ্ছনীয় { w সাহচৰ্য্য সর্বদা বাঞ্চনীয় বলিয়া শাসন সামান্যত বাঞ্ছনীয় নহে । সে কালে শাস্ত্ৰ যখন সজীব ছিল, তখন সমস্ত শাসনই শাস্ত্রে ছিল । পিতামাতার শাসন, রাজার শাসন, প্রভুর শাসন, শাস্ত্ৰ হইতে স্বতন্ত্র পদাৰ্থ বলিয়া গণ্য ছিল না । কোথাও পিতা, কোথাও প্ৰভু, কোথাও রাজা—শাস্ত্রের শাসন মাত্র, পুত্রের প্রতি, ভূত্যের প্রতি, প্ৰজার প্রতি পরিচালনা করিতেন । সুতরাং তখন ছিল শাসন-কীৰ্ত্তব্য কৰ্ম্মের একটি অঙ্গ । এখন হইয়াছে অনেক স্থলে অনিষ্ট আশঙ্কায় ক্রোধের পরিচয় । আমার প্রতি সাহচর্য্যের শাসন ছাড়া অন্যরূপ শাসন প্ৰায়ই ছিল না ; তবে পিতার অপ্রীতি, বা ক্রোধকে আমি বড়ই ভয় করিতাম । নিয়ত সাহচর্য্যে শ্ৰীতি জন্মায় বা বদ্ধিত হয় । আর সম্পর্ক গৌরবজনিত একটি ভয়ভয়ভাব সেই প্রীতির সঙ্গে সঙ্গে থাকে । সেইজন্য পিতামাতা গুরুজনের কাছ হইতে, সাহচৰ্য্য থাকিলেই, শিক্ষা অতি সহজেই হয়। ক্রীত শিক্ষক বা বেতনভোগী স্কুল মাষ্টারের কাছে সেরূপ হইবার সম্ভাবন নাই । আমাদের এখনকার কালে দেখিতে পাওয়া যায় যে, নিষ্কৰ্ম্মা পিতা পিতৃব্য যদিও আপনারা বালককে শিক্ষা দিতে স্বচ্ছন্দে পারেন, তথাপি তাহা না দিয়া একজন প্ৰাইবেট টিউটার হস্তে শিশুকে সমৰ্পণ করেন । পঞ্চাশ বৎসর পূর্বে, একজন বাঙ্গালি ভদ্রলোকের একটা ভাল চাকরী হইলে, বিদেশে তাহার বাসায় আর দশজন আত্মীয় অনাত্মীয় ভদ্রসন্তান থাকিতেন । তঁহাদের থাকার উদ্দেশ্য কাজ কৰ্ম্মের উমেদারী । তাহার মধ্যে ব্ৰাহ্মণ সস্তানেরা আপনা। আপনি পাকাদি ক্রিয়ার বন্দোবস্ত করিয়া লইতেন, অপরের হাট বাজারের তত্ত্বাবধান ইত্যাদি করিতেন। তখন ভাল চাকরী, অল্প বেতনে যথেষ্ট পাওয়া যাইত । পাচক ব্ৰাহ্মণ অল্প বা অধিক বেতনে, একেবারেই পাওয়া যাইত না । কৃষ্ণনগরের বা বৰ্দ্ধমানের রাজবাড়ীতে বেতনভুক পাচক ব্ৰাহ্মণ ছিল না, এমন কথা বলিতেছি না বা বাঙ্গালার কোন বড় মানুষের বাড়ীতে বেতনভুক পাচক ছিল না, তাহাও বলিতেছি না, তবে সাধারণত বড় বড় উকীল, মোক্তার বা হাকিমের বাসায় যেরূপ ঘটিত, তাহাই বলিতেছি । আসল কথা, ভদ্র ব্ৰাহ্মণ-সন্তান বেতন লইয়া পাচকতা করা অত্যন্ত হীনবৃত্তি মনে করিতেন। সুতরাং সে বৃত্তি সহজেই গ্ৰহণ করিতেন না। আমাদের বাসায় যখন আমার মাতা ও অন্যান্য মেয়েছেলেরা থাকিতেন, তখন আমি ও পিতা আমরা অন্তঃপুরে পরিবার মধ্যে পাচিত অল্প গ্ৰহণ কবিতাম। যখন তঁহারা না। ty