পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Y D DD DD BBBD BD LBBBS BDBB DDBBD DD S EL BBD S EL LuBDD দন্ধ্যাভয়, হিংস্ৰ জন্তুর ভয় অতিশয় ছিল, তবু তাহারা এরূপ আশা করিয়াছিলেন । এখন রেল হইয়াছে, পথ-ঘাট সুগম হইয়াছে, পিতা ত কৃতী বটেনই, সুতরাং রাজকাৰ্যা হইতে অবসরান্তে তঁহাদের দাবির কথা স্মরণ করিয়া পিতা গমনের জন্য বিশেষ বাগ্ৰ হইয়াছিলেন । চাঞ্চ র, ব্ৰাহ্মণ, আর পিতার পিসতাত ভাই- অামার প্রসন্ন কাকাকে সঙ্গে লইয়া বাবা গয়া গমন করিলেন । ভাবটা এই যে, নিজের পিতৃপুরুষ ও মাতামহ বংশের যেরূপ পিণ্ডদান হইবে, পিসার পিতৃপুরুষদিগের ও সেইরূপ পিণ্ডদান হইবে । তঁহাৱা কয়দিন গিয়া ৬ বৈদ্যানাথে থাকেন । তাহার পর গয়া করিয়া আসিয়া আবার বৈদ্যুনাথে ছিলেন । জরের তাড়নায়, ৬৮বৈদ্যনাথের রূপায় বৈদ্যনাথধাম তৎপৃকব হইতেই আমার একরূপ (Second , oruicille) দ্বিতীয় নিবাস কইয়াছে । পিতার কিন্তু সেই ওঁক বার বা দুইবার যাওয়া । তঁহাকে হাতে পাইয়া পাণ্ডা মহাশয়েরা খুব আদর আবদার করিলেন । আমাদের বাড়ীতে আড়ম্বরে তঁহাদের সপাক পক্কান্ন ভোজ হষ্টল । অ্যাৱ আমাদের খাস পাণ্ড অক্ষয়কুমার পট্টবস্ত্র, শাল উত্তরীয় প্রাপ্ত হইলেন । কিছুদিন পক্সে পিতা ফিরিয়া আসিলেন । আমি জীবনী লিখিতেছি না, মাস মাস বা বৎসর বৎসর পর পর ঘটনার উল্লেখ করিব না, তবে এই সকল বিষয়ে উহার ভক্তি-শ্রদ্ধা কিরূপ ছিল, সেই কথাই বুঝাইবার জন্যই গয়া গমনের কথা বলিলাম। আসল কথা, অন্য তীর্থাদির জন্য তিনি ব্যগ্র না থাকিলেও গয়া গমনের জন্য ব্যগ্রী হন । অন্যান্য তীর্থ প্রধানত আপনার জন্য, গয়া তীৰ্থ প্ৰধানতঃ পিতৃপুরুবদিগের জন্য । দেবতায় তাহার কিরূপ শ্ৰদ্ধা-ভক্তি ছিল, তাহা তাহার হিন্দুধৰ্ম্ম বিষয়ে বক্তৃতার শেষভাগ দেখিলেই বেশ বুঝা যায়। সেই বক্তৃতার শেষ দিকে যে দুর্গোৎসবের বর্ণনা অাছে, তাহা কেবল প্ৰথম পুরুষে, তাহারই স্বরূপ বর্ণনা মাত্র ; “এই সময়ে গলব্লগ্নীকৃতবাসা কৃতী ( যিনি প্ৰকৃত হিন্দু ) প্ৰতিমার সম্মুখে, অথচ কিঞ্চিৎ পার্শ্বে’ দণ্ডায়মান হইয়া করয়োড়ে দেখিতেছেন। এবং ভাবিতেছেন । এই ভাবিতেছেন যে, পরম প্রকৃতি, আত্মা শক্তি, তাহার অ্যালয়ে অধিষ্ঠিত হইয়াছেন। গৃহস্বামী এই ভাবিতেছেন এবং তঁহার হৃদয়ে ভক্তি ও আনন্দতরঙ্গ যুগপৎ উদ্বেলিত হইয়া নয়নযুগল দিয়া দর-দরিত ধারায় পড়িতেছে। গৃহস্বামী পশ্চাৎ দিকে দৃষ্টি করিলেন, দেখিলেন, তাহার ভবনে আত্মীয় বন্ধু, কুটুম্ব, ব্ৰাহ্মণ পণ্ডিত, প্ৰতিবাসী, গ্রামবাসী এবং দীনদুঃখীগণ প্ৰভৃতি বহুল ব্যক্তির সমাগম হইয়াছে। সকলেই আনন্দে উৎফুল্প; গৃহস্বামী ভাবিলেন যে, অন্য আমার ভবনে আনন্দময়ী আগমন করিয়াছেন, ইহাতেই এত আনন্দ। তাহার নয়ন দিয়া আবার আনন্দধারা বহিতে লাগিল। এই আনন্দ অতি বিমল আনন্দ, ইহা ভক্তির আনন্দ, ইহা স্বৰ্গীয় আনন্দ । OY