পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৯৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ব্ৰাহ্মণ যুবক তাহার নিকট পড়িতে আসিতেন। তঁহাদের মুখে প্ৰপিতামহ মহাশয় ংবাদ পাইতেন, তঁাহারা কি পড়েন ; তাহাতে অতিশয় আনন্দ প্ৰকাশ করিতেন । আমি কলিকাতা হইতে বাড়ি গেলেই দেখিতে পাইতাম, তিনি কৈলাসমামাকে ডাকিয়া তিন চরণ সংস্কৃত কবিতা পাঠ করিয়া, শেষ চরণ কি তাহা জানিতে চাহিতেছেন। ; কৈলাসমামা আশ্চর্যান্বিত হইয়া আমার মাকে বলিতেছেন, “দিদি, কি আশ্চৰ্য । এ সকল শ্লোক এখনো ওঁর স্মরণ অাছে !’ অপর ঘটনাটি হাস্যজনক । ‘রাম শব্দের টা-তে কি হয় ? আমি ১৮৫৬ সালে যখন কলিকাতায় আসিয়া সংস্কৃত কলেজে ভর্তি হইলাম, তখন বিদ্যাসাগর মহাশয় সেখানকাব কর্তা । তিনি তৎপূর্বে মুগ্ধবোধ ব্যাকরণ পড়ানো বন্ধ করিয়া নিম্ন শ্রেণীতে তঁহার প্রণীত উপক্ৰমণিকা ধরাইয়াছেন । আমরা উপক্ৰমণিকা অনুসারে সংস্কৃত শিক্ষা আরম্ভ করিলাম। তৎপরে গ্রীষ্মের ছুটিতে বাড়িতে আসিলে আমার প্রপিতামহদেব শুনিলেন যে আমি সংস্কৃত কলেজে ভর্তি হইয়াছি, তাহা শুনিয়া আনন্দিত হইলেন। একদিন সন্ধ্যার সময় আমাকে নিকটে বসাইয়া জিজ্ঞাসা করিলেন, “বাবা । রাম শব্দের ‘টা’-তে কি হয়, বল তো ।” আমি বালকের কণ্ঠস্বরে চীৎকার করিয়া বলিলাম, “রাম শব্দের আবার ‘টা’ কি ? --রামটা ।” তখন তিনি বিরক্ত হইয়া বলিলেন, “ঘোড়ার ঘাস কাটবে।” *রাম শব্দের তৃতীয়র একবচনে কি হয়"--বলিয়া জিজ্ঞাসা করিলে আমি বলিতে পারিতাম ‘রমেণ’ । কিন্তু আমি তো মুগ্ধবোধ পড়ি নাই, কাজেই রাম শব্দের ‘টি’ যে কি, তাহা বুঝিতে পারিলাম না। ইহা লইয়া আমার বাবার সহিত প্ৰপিতামহদেবের কথা হইল, বাবা সমুদয় কথা বুঝাইয়া দিলেন । কিন্তু সংস্কৃত ব্যাকরণ পড়িতেছি। না শুনিয়া তিনি বড়ই দুঃখিত হইলেন । বাবার মুখে শুনিয়াছি, প্ৰপিতামহ মহাশয়ের সময়ে কলাপ ব্যাকরণ পূড়িবারু রীতি ছিল, তদনুসারে তিনি যৌবনে কলাপ ব্যাকরণ পড়িয়াছিলেন । কিন্তু আমার পিতা মহাশয়ের পঠদ্দশাতে মুগ্ধবোধ ব্যাকরণ পড়িবার রীতি প্রবর্তিত হইয়াছিল। তদনুসারে প্রপিতামহ মহাশয় বোধ হয় মনে করিয়াছিলেন যে আমি মুগ্ধবোধ পড়ি, সেই জন্যই প্রশ্ন করিয়াছিলেন, “রাম শব্দের "টা’-তে কি হয় ?” প্ৰপিতামহদেব আমার মাতার মন্ত্রাদাতা গুরু ছিলেন । সুতরাং সময়ে অসময়ে মাতাকে ডাকিয়া, কোন স্থলে কিরূপ কর্তব্য, সে বিষয়ে উপদেশ দিতেন । এই সকল উপদেশ আমার মাতার অন্তরে এরূপ দৃঢ়বদ্ধ হইয়| গিয়াছিল যে, তিনি সামগ্ৰ জীবনে ঐ সকল উপদেশ হইতে একপদ ও বিচলিত হন মাই বলিলৈ অত্যুক্তি হয় না। প্রপিতামহ মহাশয় আমার জননীকে বিবাহিতা হিন্দু রমণীর যে Se