পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪১৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আমি। দেখ, তোমরা যাহাকে প্ৰভু মনে কর, তঁর কি অমূল্য উপদেশ ! তুমি এ উপদেশ। কতবার পাইয়াছ, তবু কেন তোমার এ প্ৰবৃত্তি ? আর তুমি আমাকে এত খারাপ কিরূপে ভাবিলে ? তোমার স্বামী তোমাকে আমার হাতে সঁপিয়া গিয়াছে। আমি কি ছোটলোক যে বিশ্বাসঘাতকতা করিব ? আমি সেইদিন তাহাকে যেরূপ তেজের সহিত উপদেশ দিয়াছিলাম, জীবনে আর কাতাকেও বোধ হয় সেরূপ দিই নাই। তৎপরদিন তাহার পতিকে ডাকাইয়া বশিলাম, “তোমার স্ত্রীকে নিয়ে যাও, ওকে বাইরে রাখা ভালো নয়।” সে তাহাকে লইয়া গেল । ইহার পর ঐ নারীকে আর একবার দেখিয়াছিলাম। কয়েক বৎসর পরে শহরের সন্নিকটবর্তী কোনো পথ দিয়া যাইবার সময় পথের পার্শ্ববর্তী এক বাড়ি হইতে তাহার পুত্রটি বাহির হইয়া আসিয়া আমাকে বলিল, “আমরা এই বাড়িতে থাকি ; মা আপনাকে দেখতে পেয়েছেন, একবার দেখা করবার জন্য ডাকছেন ।’ আমি বাড়িতে প্ৰবেশ করিলে তাহার মাতা গলবস্ত্রে আমার পদে প্ৰণত হইয়া, আমার বাড়ির সমুদয় স" পাদ জিজ্ঞাসা করিল। একটু দাড়াইয়া তাঙ্গাদের কুশল সংবাদ লইয়া চলিয়া ਇਸੇ | রাজনারায়ণ বসু। ক্ৰমে আমরা ১৮৭৭ সালে উপনীত হইলাম। এই সালের প্রথমে হরিনাভি সমাজের উৎসবে যাই । সেখানে ভক্তিভাজন উমেশচন্দ্ৰ দত্ত মহাশয়ের গৃহে এক পারিবারিক অনুষ্ঠানে ব্ৰাহ্মগণের সমাগম হয়। উক্ত অনুষ্ঠান ক্ষেত্রে আদি ব্ৰাহ্মসমাজের সভাপতি স্বগীয় রাজনারায়ণ বসু মহাশয়ও উপস্থিত ছিলেন । তিনি আমাকে বড় স্নেহ করিতেন। তাহার সরল আকৃত্ৰিম ভক্তি আমাকে মুগ্ধ করিত। তিনি তখন কাৰ্য হইতে অবস্থিত হইয়া বৈদ্যনাথ দেওঘরে বাস করিতেছিলেন। আমি মধ্যে-মধ্যে র্তাহার বিমল সহবাসে কিয়াৎকাল যাপন করিবার জন্য সেখানেও যাইতাম । তিনি অতি পরিহাস্যরসিক আমোদপ্রিয় পুরুষ ছিলেন, আমিও তদ্রুপ; সুতরাং দুজনের একত্র সমাগম হইলে উভয়ের ‘জিাগল্পিষা’ প্ৰবৃত্তি প্ৰবল হইয়া উঠিত। হাসিতে হাসিতে লোকের নাড়িতে ব্যথা হইয়া যাইত । এবারেও হরিনাভিতে তাহা ঘটিল। একদিন রাত্রে সামাজিক উপাসনার পর আহারান্তে আমাদের দুইজনের গল্পের কাটাকাটিতে রাত্রি ২টা বাজিয়া গেল। ব্ৰাহ্মদের নাড়িতে ব্যথা হইল। সেই কারণেই হউক, কি হরিনাভিয় ম্যালেরিয়াবশতই হউক, আমি কলিকাতায় আসিয়াই জ্বারাক্রান্ত হইলাম। জ্বরের সঙ্গে রক্তকাশ দেখা দিল। একজন ডাক্তার ঋলিলেন, ইপিকাশের সূত্রপাত, কিন্তু ডাক্তাৱ মহেন্দ্রলাল সরকার বলিলেন, ক্ষয়কশোয় । “স্বত্রপাত । সেইরূপ চিকিৎসা আরম্ভ করিলেন । , bêty