পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/১৭৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহাশয়ের সহিত প্ৰথম সাক্ষাৎ হয়, সেদিন একটা স্মরণীয় দিন। সেইদিন প্রাতে চন্দাবারকার আসিয়া আমাকে বলিলেন, “আমাদের বোম্বাই প্রেসিডেন্সির শিক্ষিত দলের নেতা মিস্টার রাণাড়ে মহাশয় গত রাত্রে তাঁহার কম স্থান হইতে বোম্বাই আসিয়াছেন। আমােক স্থানে আছেন, চলন তাঁহার সহিত দেখা করাইয়া দিই।” আমি তৎক্ষণাৎ বাহির হইলাম। পথে ভাবিতে-ভাবিতে চলিলাম যে, বোম্বাইয়ের শিক্ষিত দলের নেতা ও গবৰ্ণমেণ্টের উচ্চ কমচারীর সহিত দেখা করিতেছি, না। জানি গিয়া কিরােপ দেখিবা! চন্দাবারকার পথে আমাকে তাঁহার গণকীতি অনেক DDB DDBD S DDD DBB BB DBBD DuDBD BBB BBBLDBDBB S DDD দেখি, বাহিরের ঘরের মেজেতে জাজিমের উপর একটি ভদ্ৰলোক বসিয়া আছেন। তাঁহার গায়ে একটি সামান্য বেনিয়ান, মাথায় একটি নাইট ক্যাপ, যেরপ ক্যাপ। আমরা কলিকাতায় রাজপথের সামান্য লোককে পরিতে দেখিয়াছি। সম্মখে একটি তাকিয়ার উপরে একখানি সংবাদপত্র, তাহাই তিনি পড়িতেছেন। চন্দাবারকার। আমাকে লইয়া পরিচয় করাইয়া দিলেন। তিনি আমাকে নমস্কার করিয়া বসিতে বলিলেন। তাহার পর প্রত্যেক কথায় এমন কিছ শনিতে লাগিলাম ও শিখিতে লাগিলাম, যাহা তৎপবে শিক্ষিত মানষদের মখেও শনি নাই। উঠিয়া আসিবার সময় তাঁহার সামান্য বেশ ও সবিনয় ব্যবহারের কথা সমরণ করিয়া ভাবিতে লাগিলাম, শিক্ষিত বাঙালী পদপথ লোক ও বোম্বাইয়ের পদস্থ লোকে কত প্রভেদ ! বাঙালী পদস্থ লোকেরা হাব-ভাব পোশাক-পরিচ্ছদে বড়লোক হইয়া পড়েন এবং অনেক ব্যয় করেন। বোম্বাই প্রেসিডেন্সির ভদ্র ও পদস্থ লোকেরা পোশাক পরিচ্ছদের প্রতি তত দন্টি রাখেন। না। ইহা একটি চিন্তা করিবার মতো কথা । এই প্রসঙ্গে সমরণ হইতেছে যে, আমি পরে একবার প্রচারে গিয়া (১৮৮৪ সালের ৬ই ডিসেম্বর হইতে কয়েক দিন) পণা নগরে এই মহাদেব গোবিন্দ রাণাডে৷ মহাশয়ের ভবনে অতিথি হইয়াছিলাম। এখানেই তাহার বণনা করিতেছি। সেবারেও রাণাডে৷ মহাশয়ের দৈনিক জীবন দেখিয়া আমি মগধ হইয়াছিলাম। তিনি বোধ হয় তখন পণার সমল কাজ কোর্টের জজ। এরপ পদস্থ একজন বাঙালী ভদ্রলোক হইলে তাঁহার ভবনে কি বাহ্য বিলাসের প্রাদাভােব দেখিতাম! জড়ি, গাড়ি, পোশাক, পরিচ্ছদ, দাস-দাসীর ধােম দেখিতাম। কিন্তু রাণান্ডের ভবনে তাহার কিছই দেখিলাম না। তিনি কোট হইতে আসিয়াই রাজকীয় পরিচ্ছদ ত্যাগ করিয়া তাঁহার মারহাটি লালপোড়ে ধতি, বেনিয়ান ও লালপোড়ে চাদর ও চটি পড়িয়া আমার সহিত বহিস্ৰমণে বাহির হইতেন। ফিরিয়া আসিয়া একটি কাঠের দোলার উপরে বসিতেন। তাঁহার প্রাইভেট সেক্রেটারি সংবাদপত্র সকল লইয়া মাটিতেই বসিতেন, বসিয়া একএকখানি কাগজ লইয়া পড়িতে আরম্ভ করিতেন। এক-এক প্যারাগ্রাফের দই পংক্তি পড়িলেই, রাণান্ডে মহাশয় আর পড়িতে হইবে কি না জানাইতেন; তৎপরে আবশ্যক হইলে আরও পড়া হইত, নতুবা সে প্যারা ত্যাগ করা হইত। পড়িতে পড়িতে কোন কাগজে কি টেলিগ্রাম করিতে বা পত্র লিখিতে হইবে, তাহা মাখে মাখে। লেখাইয়া দেওয়া হইত। এইরূপে প্রায় দইঘণ্টা আড়াইঘণ্টা যাইত, তৎপরে আহারার্থ যাওয়া হইত। প্রাতে রাণান্ডে গরতের বিষয় সকল পাঠ করিতেন ও সে বিষয়ে চিন্তা করিতেন। এইরপে নিঃশব্দে চিন্তা ও কায্যের স্রোত প্রবাহিত থাকিত, দেখিয়া হাদয় মনের বিশেষ উপকার হইত। এইরূপে কয়েকবার আমি রাণাডে৷ মহাশয়ের বাড়িতে অতিথি হইয়া থাকিয়া NGA VO