পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২০

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিষম দলাদলি ও তাহার ফলস্বরূপ মামলা মোকদ্দমা উপস্থিত হইল। তখন প্রতিবেশীগণ আমার মাতুল-পরিবারের প্রতি এরােপ উপদ্রব আরম্ভ করিল যে, তাঁহারা BDD BB BBBD DBDDLB DDuuD DDBLBDBLLD DDDD DBB DDuB BBD DBBBB বসিয়াছেন; চক্ষে দেখেন না, কানো শোনেন না। তিনি আমাকে পাইয়া “আমার বংশধর?আসিয়াছে” বলিয়া মহা আনন্দিত হইলেন, এবং আমাকে ‘বাবা বাবা’ করিয়া ডাকিতে লাগিলেন। i শৈশবে অশান্তি। আমার এতটা অভ্যর্থনা আমার বড়পিসীরা সহ্য হইল না। কয়েক বৎসর পাবে আমার কাকার মাতু্য হওয়ার পর, ও ছোট পিসী শবশয়ালয়ে যাওয়ার পর, তিনি নিজ পত্রিকন্যাগণকে লইয়া গাহের কত্রী হইয়া বসিয়াছিলেন। সে ভিটা যে তাঁহাকে কোনো দিন পরিত্যাগ করিতে হইবে, তাহা বোধ হয়। সবপ্নেও জানিতেন। না। গািহকতা সম্ববীয় পিতামহের হাতে নািতন বংশধরের এই আদর দেখিয়া তাঁহার DBDD BBBD BDBBD BBBD BBDS DDDD DBBDBDS DDD LBBDD DBDBB DDBBLB बाशिgन्न झश्झिाCछन् । ইহার পর হইতে আমার মাতার প্রতি তাঁহার দারণ বিরািন্ধ ভােব জন্মিল এবং ননদে ও ভাজে মন-কষাকষি আরম্প্ৰভ হইল। তাহার ফলস্বরপ আমার মা আমাকে দেখিতেন না। মনের রাগে প্রভাত হইতে বেলা দিবপ্রহর পর্যন্ত অনাহারে রান্নাঘরে সংসারের কাজে নিমগন থাকিতেন, আমি চোচাইয়া মরিয়া যাইতাম, একবার ফিরিয়া চাহিতেন না। বড় কাঁদিলে আমার পিসতুতো বোনেরা কোলে করিয়া রান্নাঘরে লইয়া গিয়া উনানের নিকট হইতে সতন্যপান করাইয়া আনিত। কিন্তু রাগের দধি খাইয়া খাইয়া আমার ঘোর উদরাময় জন্মিল; যেমন দধি পান করিতাম, তেমনি দধি বাহির হইয়া যাইত। অলপদিনের মধ্যে রাগে ও অনাহারে মায়ের বকের দািধ শকাইয়া গেল। তখন আমার জীবন সঙ্কট উপস্থিত। রক্তভেদ ও রন্তবমন আরম্ভ হইল। তখন মা’র চক্ষ স্থির হইল। তিনি সমস্ত দিন সংসারের কাজে থাকিতেন, সমস্ত রান্ত্রি আমাকে কোলে করিয়া বসিয়া কাঁদিতেন, এবং মধ্যে মধ্যে আমার মাখে। জল দিতেন। এই অবস্থাতে একদিন আমার পিসীর অন্যােপস্থিতি কালে আমার মা আমার প্রপিতামহের ক্লোড়ে আমাকে শোয়াইয়া তাঁহার কানে চীৎকার করিয়া বলিলেন, “আমার দধে শকিয়ে গিয়েছে, তোমার বাবা না খেতে পেয়ে মরে।” এই কথা শনিয়া তিনি নিজের গালে মাখে। চড়াইতে লাগিলেন, এবং এই সংবাদ তাঁহাকে কেহ দেয় নাই বলিয়া আমার পিস্যামহাশয় ও পিসীমাকে গালাগালি দিতে লাগিলেন; এবং পিস্যামহাশয় আসিলে হাকুম দিলেন, “আমার বাবার জন্য যত দধি লাগে রোজ করে দাও।” আমার জন্য দধের রোজ হইল। তদবধি প্রপিতামহ কিছ সতক হইয়া কান পাতিয়া থাকিতেন। ছোট ছেলের কান্না একটি কানো গেলেই “বাবা কেন কাঁদে” বলিয়া চীৎকার করিতেন, আর বড়পিসী রাগিয়া যাইতেন। আমার জন্য দধের রোজ হইল বটে, কিন্তু তখন উদর ভাঙ্গিয়াছে, ছেলে আর বাঁচানো যায় না। আমার শরীর অস্থিচমাসার হইল। তখনকার অবস্থা এই বলিলেই 3RO