পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২১২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বসিয়া অপরাপর ইংরাজের নিকট এদেশীয়দিগকে খরব গালাগালি দিতে লাগিলেন। ভারতবাসী ইংরাজদের মখে যাহা শনিয়াছিলেন ও নিজে যাহা দেখিয়াছিলেন, তাহা বলিয়া এদেশীয়দিগের প্রতি ঘণা বর্ষণ করিতে লাগিলেন। আমি তখন কিছ বলিলাম না। পরে আহারান্তে উপরকার ডেকে তিনি যখন বেড়াইতেছেন। আমিও বেড়াইতেছি, তখন আমি তাঁহার নিকট গিয়া ভদ্রভাবে বলিলাম, “আপনি টেবিলে যে সকল কথা বলিতেছিলেন, সে বিষয়ে আমি আপনার সহিত কথা কহিতে ইচ্ছা! করি। আপনি ছয়মাস বৈ এদেশে আসেন নাই, বেশি দেখেন নাই, যা শহনেছেন তার অনেক ঠিক নয়।” এই কথা শনিয়াই মানষটা মািখ ফিরাইয়া লইল, বলিল, “দরকার নেই, আমি কিছ শািনতে চাই না।” সেইদিন অবধি আমি তাহাকে ত্যাগ করিলাম, সে আমাকে ত্যাগ করিল। এক সন্টীমারে এক ক্লাসে আছি, এক সঙ্গে খাই, তব, যেন কত দরে আছি; আলাপ পরিচয় সম্পভাষণ নাই। দ্বিতীয় ঘটনাটি এই। জাহাজ যখন গিয়া ফ্রান্সের মাসেলস বন্দরে দাঁড়াইল, তখন আমরা স্থির করিলাম যে একবার শহরটা দেখিতে যাইব । বড়-বড় নৌকা আসিয়া জাহাজের মাল তুলিতেছে, আমি এক পাশে দাঁড়াইয়া আছি; অপেক্ষা করিতেছি, একটা ভিড় কমিলে নামিব। দেখিলাম, ফরাসী ভদ্রলোক দই-একজন আসিতেছেন, তাঁহারা সেখান হইতে আরোহী হইবেন। তাঁহাদের সঙ্গে তাঁহাদের বলধারা তাঁহাদিগকে তুলিয়া দিতে আসিয়াছেন। একজন ভদ্রলোক বন্ধকে তুলিয়া দিয়া যাইবার সময় দেখিলেন। আমি এক পাশে দাঁড়াইয়া আছি। নিকটে আসিয়া নমস্কার করিয়া বলিলেন, “আপনি বোধ হয়। ভারতবর্ষ হইতে আসিতেছেন ?” जाशि। झाँ। প্রশন। আপনাদের পথে ক্লেশ হয় নাই তো ? আমি। না, আমরা বেশ আসিয়াছি। তিনি আমাকে চুরািট দিতে চাহিলেন, আমি তামাক খাই না। শনিয়া সেটি লকাইলেন। শেষে বলিলেন, “আপনি কি তীরে যাইবেন ? সাবধান, ভালো ইন্টারপ্রেটার লইবেন, নতুবা লোকে ঠকাইবে।” এই বলিয়া যাইবার সময় একজন চেনা ইন্টারপ্রেটারকে ডাকিয়া আমার কাছে দিয়া গেলেন। ইংরাজদের ব্যবহারের সহিত কি প্রভেদ ! সেই সমদ্রযাত্রা বিষয়ে আর একটি সমরণীয় ঘটনা আছে। জাহাজে আরোহীগণ আপনাদের বিনোদনের জন্য নানা প্রকার উপায় উদ্ভাবন করিয়া থাকে; সাহেব ও মেমদিগের নাচ গান ও খেলা, সকলি চলিতে থাকে। আমরা মিজােপর” নামক জাহাজে যাইতেছিলাম। তাহার ফাস্ট ক্লাসের আরোহীগণ এইরপ নাচ গান খেলা আরম্ভ করিলেন। সেকেন্ড ক্লাসে চীন দেশ হইতে কতকগালি ইংরাজ মিশনারী কলম্বো বন্দরে আসিয়া আমাদের সঙ্গে জটিয়াছিলেন। তাঁহাদিগকে আমি বলিলাম, “আসন, আমরা সম্প্ৰস্তাহে একদিন করিয়া সেকেন্ড ক্লাসে বিবিধ বিষয়ে বস্তৃতা আরম্ভ করি, ও প্রথমশ্রেণীর আরোহীদিগকে নিমন্ত্ৰণ করিয়া শনাই।” ক্ৰমে আমাদের সাপত্তাহিক বক্তৃতা আরম্ভ হইল। তাহার এক বস্তৃতা আমাকে দিতে হইল। যদিও অনেকে আসিলেন না, যাঁহারা আসিলেন তাঁহারা সন্তোষ প্রকাশ করিলেন। এই উপলক্ষে নরওয়ে দেশের একজন ভদ্রলোকের সহিত আমার পরিচয় ও বন্ধতা হইয়া গেল। তিনি ফাসটি ক্লাস ত্যাগ করিয়া অনেক সময় দিবতীয় শ্রেণীতে আসিয়া আমার সাহিত কথাবাত কহিতেন। ᎸᏅᏓᎴ