পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লাগিলেন। ক্লামে এই চিন্তা তাঁহাকে ঘিরিয়া লইল । অবশেষে তাঁহারা কতিপয় মহিলা একত্র হইয়া একটি ছোট সভা করিলেন। প্ৰথমে লন্ডনের যে বিভাগে এই শ্রেণীর DDDBD DBB BBBB DBBBD BB SD L BDDS BDD DBBB BBD DD DBD DDD করিলেন। ঘরটি উত্তম রূপে সাজাইলেন, বসিবার উত্তম আসনের ব্যবস্থা করিলেন, একটা পিয়ানো লইয়া গেলেন, গান-বাদ্যের সমচিত ব্যবস্থা করিলেন, এবং কতিপয় মহিলা বন্ধতে মিলিয়া কে কে সম্প্ৰস্তাহের কোন কোন দিন সন্ধ্যার সময় এই গহে। গিয়া মেয়েদিগকে গান-বাদ্য শনাইবেন ও মেয়েদের সঙ্গে কথাবার্তা কহিবেন তাহা সিনেথর করিলেন। তৎপরে একদিন ছোট-ছোট কাগজে একটি ক্ষমাদ্র বিজ্ঞাপন মাদ্রিত করিয়া রাজপথে ভ্ৰমণকারিণী বালিকাদিগের মধ্যে বিতরণ করা হইল। “তোমরা যদি অমক নম্বর বাড়িতে নিম্পন তলের ঘরে এস, তবে তোমাদিগকে গান-বাজনা শনানো DBBS BDD S BDB BBBD BBBD DDDB DDBD SS DDBBDD BBDD DBDBDBD শনাইলেন, তাহদের সহিত আলাপ পরিচয় করিলেন, এবং তাহারা কোথায় থাকে, কিরােপ সঙ্গে বেড়ায়, কিরাপে দিন কাটায়, এই সকল সংবাদ সংগ্ৰহ করিলেন। তাহারা সেদিন আপ্যায়িত হইয়া ফিরিয়া গেল। পরদিন সন্ধ্যার সময় বহসংখ্যক বালিকা উপস্থিত হইল। ক্ৰমে আর সে ঘরে লোক ধরে না। একটির পর আর একটি এইরূপ করিয়া লন্ডনের সেই বিভাগে ক্ৰমে ক্ৰমে সাত আটটি ঘর লাইতে হইল। শত-শত যাবতী সন্ত্রীলোক প্রতিদিন সন্ধ্যার সময় ঐ সকল গহে আসিয়া গান-বাজনা উপদেশাদি শনিতে লাগিল। এদিকে উদ্যোগকারিণী মহিলাদের সভা বিস্তৃত হইয়া পড়িতে লাগিল। কি আশচযা পরোপকার প্রবত্তি! কারামত্তের সাহায্য সভা। আর একটি কায্যের কথা তখন শনিলাম, ইহার আয়োজন বোধ হয় পাব হইতেই হইয়া থাকিবে। সে কাজটি এই। একবার কয়েকজন ভদ্রলোক এই আলোচনা করিতে প্ৰবত্ত হইলেন যে, “যাহারা একবার কোনো অপরাধে লিপত হইয়া কারাদন্ডে দন্ডিত হয়, তাহারা যখন কারাগার হইতে নিম্প্রকৃতি লাভ করে, তখন বাহিরে আসিলে তো আর পীবের ন্যায় সমাজে মিশিতে পায় না, লোকে তাহাদিগকে কাজ দিতে ভয় পায়, ঘরে রাখিতে ভয় পায়, সমাজে তাহদের সঙ্গে মিশিতে লজা বোধ করে। তখন তাহদের কি অবস্থা দাঁড়ায়! এই কারণেই বোধ হয়। অনেক কারামন্ত লোক আঝর অপরাধে লিপ্তত হইয়া কারাগারে ফিরিয়া যায়। কারামন্ত মানষদিগকে সপথে রাখিবার জন্য ও সমাজে প্রতিষ্ঠিত করিবার জন্য কিছ করা যায় কি না ?” এই চিন্তা করিতে করিতে কতিপয় ভদ্রলোক ‘কারামক্তের সাহায্য সভা’ নামে এক সভা সস্থাপন করিলেন। তাহার ফল। এই হইয়াছে যে, ইংলন্ডের অনেকগলি কারাগার কয়েদীহীন হইয়াছে। সেখানকার সহদেয় মধ্যবতী শ্রেণীর পরিষ ও নারীগণের পরোপকার উপহার কথা অধিক কি বলিব! সেখানে অনেক ভদ্রমহিলা হাসপাতালে রোগীগণের নিকট ফলের তোড়া পাঠাইবার জন্য স্থানে স্থানে সভা করিয়াছেন, নিম্পন্ন শ্রেণীর দরিদ্র শিশদিগকে বড়দিনের সময় পর্তুল উপহার দিবার জন্য বড় বড় সভা করিয়াছেন, বড় বড় শহরে নিম্পন্ন শ্রেণীর বালক-বালিকাদিগকে মধ্যে মধ্যে শহরের বাহিরে লইয়া গিয়া বিশদ্ধ বায় সেবন করাইবার ও প্রকৃতির শোভা দেখাইবার জন্য সভা করিয়াছেন। বস্তুত মানবের পরহিতৈষণা প্রবত্তি হইতে কত প্রকার সদনষ্ঠান উৎপন্ন হইতে পারে, তাহা দেখিলে বাসতবিকই বিস্মিত হইতে হয়। RNS bio