পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২৮১

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কত ব্যপরায়ণ, দঢ়চেতা ও সর্বদেশপ্রেমিক মানষি বলিয়া প্ৰসিদ্ধ ছিলেন। আমার পিতা সত্যবাদী, দঢ়চেতা ও পরোপকারী পরিষ ছিলেন। সতরাং আমার জননী ধমপরায়ণতা ও সনেীতির প্রভাবের মধ্যে জন্মগ্রহণ করিয়া সেই প্রভাবের মধ্যেই বধিত BBDBB DDD DB BLBuBuBuB SD BDDBuD DDDu DBDS BDBDBLB DDD S DS BDB BBLBDB D DBSBBD DDS DBB uDuuBDD DDD DDS DBBDD পণ্য মাত্রায় ছিল, কিন্তু অন্ধতা ছিল না; সাবধমানরাগ প্রবল ছিল, কিন্তু পরাধমে ८िाश्च छिब् न्ा । তাঁহার আত্মমর্যাদা জ্ঞান প্রবল ছিল। আমার পিতার আয় কখনোই মাসে ৩o । ৩৫ টাকার অধিক ছিল না। মাতা এমনি সগহিণী ছিলেন যে, ইহাতেই পত্রের শিক্ষা, তিনকন্যার বিবাহ ও ধামিক হিন্দ গহসেপেথর ক্রিয়াকম সমন্দিয় নিবাহ করিয়াছেন। অথচ আমার জ্ঞানে আমি কখনো তাঁহাকে নিজ অভাব অপরকে, এমন কি তাঁহার পিত্ৰালয়ের মানষেকেও জানাইতে, বা কাহারও নিকট দটিাকা ঋণ করিতে দেখি নাই। তিনি আমার পিতাকে সম্পণেরপে ঋণহীন রাখিয়া গিয়াছেন। ধমপরায়ণতা যেন তাঁহার অসিথ মজার মধ্যে নিহিত হইয়াছিল। তৎপরে, বাল্যকালে বিবাহিত হইয়া তিনি যখন আমাদের ভবনে আসিলেন, তখন আসিয়াই অশীতিপর বদ্ধ আমার প্রপিতামহ স্বগীয় রামজয় ন্যায়ালঙ্কার মহাশয়ের সেবাতে নিষক্ত হইতে হইল, ঐ সাধ পরিষের সংসগো ও উপদেশে মাতার ধমভাব বহগণ বন্ধি পাইল। তিনি তাঁহার নিকটে মন্ত্রদীক্ষা গ্রহণ করিলেন এবং দেবতার ন্যায় তাঁহার সেবা করিতে লাগিলেন। আমার প্রপিতামহ এ লোক হইতে অন্তহিত হইবার পর পঞ্চাশ বৎসরেরও অধিক কাল মাতাঠাকুরাণী জীবিত ছিলেন। এই দীঘকালের মধ্যে তাঁহার সন্মতি একদিনের জন্যও আমার মাতার হদয়কে পরিত্যাগ করে নাই। তিনি জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত আমার প্রপিতামহের জপের মালা লইয়া প্রতিদিন জপ করিয়াছেন। শৈশবে আমি একবার কঠিন রোগ হইতে মন্ত হইলে তিনি যে হাতে ও মাথাতে ধনা পোড়াইয়াছিলেন এবং বািক চিরিয়া সেই রক্ত দিয়া ইন্ট দেবতার স্তব লিখিয়াছিলেন, তাহা পাবেই বাণিত হইয়াছে। যৌবনে যখন আমি ব্রাহামসমাজে প্রবেশ করিলাম, তখন মা’র প্রতীতি জন্মিল যে, তাঁহার পবিজন্মের কোনো পাপের জন্যই সন্তানের দািমতি ঘটিয়াছে। তিনি আমার প্রতি ককােশ ব্যবহার করিলেন না, কিন্তু এই বিশবাসের বশবতিনী হইয়া তিনি তাঁহার জপতপ ব্ৰত-নিয়মের মাত্রা অসম্ভব রাপে বাড়াইয়া দিলেন। দৈবজ্ঞ ব্রাহণ পাইলেই আমরা ঠিকুজী কোঠী তাঁহাকে দেখাইতেন এবং যে ব্রাহণ যে কিছ ব্ৰত বা ধমানন্ঠান করিতে বলিতেন, তাহাই করিতেন। এইরপে অনেক অর্থ ব্যয় হইয়া গেল এবং তাঁহার শরীর ভাঙিয়া পড়িল, বহবার চিকিৎসার জন্য তাঁহাকে কলিকাতাতে আনিতে হইল। অবশেষে একজন দৈবজ্ঞ ব্রাহণ আমার কোমঠী, দেখিয়া বলিলেন যে, আমার কোষ্ঠীতে আছে, কখনোই আমার দেবতা-ব্ৰাহমুণে মতি হইবে না। তখন হইতে জননী নিস্তার পাইলেন। পিতা ও মাতাতে কি প্রভেদ! পিতা আমাকে মারিবার জন্য গন্ডা ভাড়াতে কয়েক বৎসরে ২০ ৷৷ ২২ টাকা ব্যয় করিলেন, আর জননী আমার জন্য ব্ৰত-নিয়মে প্রায় ঐ পরিমাণ অৰ্থ ব্যয় করিলেন। গত বৎসর (১৯০৭ সালের জন মাসে) গারতের পীড়াতে আমি যখন মহত্যু ՀԳԳ