পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৯৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


BBDD DDD BBDBDDB DDBLBDBDS DDBDB BDBDB DDD DDuBLGuB BDBB BBB করিতেছেন, ইত্যাদি ইত্যাদি। ইহা লইয়া দেশব্যাপী তুমিল আন্দোলন উপস্থিত হয়, এবং যদানাথ চক্ৰবতী ও বিজয়কৃষ্ণ গোস্বামী কেশবের দলকে পরিত্যাগ করিয়া যান। গোঁসাইজী নিজের শান্তিপরের বাটীতে গিয়া চিকিৎসা কায আরম্ভ করিলেন। আমার স্মরণ হয়, আমি এই বৎসরের মধ্যে শান্তিপরে তাঁহার সহিত সাক্ষাৎ করিতে গিয়াছিলাম। পবেই বলিয়াছি, তিনি আমার সহাধ্যায়ী, তাঁহার মখে সমাদয় শ্রবণ করা উদ্দেশ্য ছিল। عقد আমার সমরণ আছে, উন্নতিশীল দলে এই বিবাদ বাধাতে আমি মমান্তিক দঃখিত হইয়াছিলাম। ইহাতে কেশববাব হইতে আমার চিত্ত বিচ্ছিন্ন হয় নাই, তাঁহাদিগকে নরপজা অপরাধে অপরাধী বলিয়া বিশ্ববাস জন্মে নাই, ৱাহাদিগের আচরণকে কেবলমাত্র ভক্তি প্রকাশের আতিশয্য বলিয়াই মনে হইয়াছিল। কিন্তু কেশববাবর পত্রিকাতে প্রতিবাদকারীদের কথার উত্তর যে ভাবে দেওয়া হইয়াছিল, তাঁহাদিগকে লোকচক্ষে হীন করিবার জন্য যেরপে প্ৰয়াস পাওয়া হইয়াছিল, তাহা সত্য ও ন্যায়ের অনগত ব্যবহার নয়। বলিয়া প্রতীতি জন্মিয়াছিল। যাহা হউক, ১৮৬৯ সালের প্রারম্ভে গোঁসাইজী তাঁহার ভুল স্বীকার করিয়া যখন আবার কেশববাবার সহিত সম্মিলিত হইতে চাহিলেন, তখন যেন আমার হািদয়ের একটা ভার নামিয়া গেল। এই পািনমিলন উপলক্ষে রাণাঘাটের সন্নিহিত কলাইঘাটা নামক স্থানে, ভারতবষীয় ব্ৰহম্মমন্দির প্রতিষ্ঠার পাবে, একটা উৎসব হয়। ঐখানে গোঁসাইজী তখন সপরিবারে বাস করিতেন। আমি অপরাপর ব্রাহের সহিত সেদিন সেখানে গমন করি। তৎপবে কেশববাবার সহিত সাক্ষাৎ ভাবে আমার আলাপ-পরিচয় হয়। নাই। সেই উৎসব ক্ষেত্রে আলোচনা সম্প্রথলে নরপ্যজার আন্দোলনের প্রসঙ্গ উপস্থিত হইলে, আমি বলি, “মিরারে ও ধমতত্ত্বে কে লেখেন তাহা আমি জানি না, কিন্তু উক্ত উভয় পত্রিকাতে যে ভাবে গোঁসাইজী ও যদবাবার কথার উত্তর দেওয়া হইয়াছে, তাহা ন্যায় ও ভদ্রতার অনগত ব্যবহার নাহে।” ইহাতে কেশববােব কানে-কানে অপর একজনকে আমার বিষয় জিজ্ঞাসা করেন। তিনি বলিয়া দিলেন, “সোমপ্রকাশ সম্পাদক হুবারকানাথ বিদ্যাভূষণের ভাগিনা।” এটা মনে আছে, কেশববাব সেই দিন হইতে আমাকে বিশেষ ভাবে দেখিলেন ও চিনিলেন। আমি সে যাত্রা কেশববাবার সম্প্রসন্ন সরল ও স্বাভাবিক ভাব দেখিয়া মগধ হইয়াছিলাম। একদিন সন্ধ্যার পর তিনি সশিষ্যে কীন্তন করিতে করিতে নৌকাযোগে চুণী নদীতে বেড়াইতে গেলেন। আমরা যাই নাই। প্রাতে উঠিয়া দেখি, কেশববােব ব্রাহমদের পায়ের তলাতে এক পাশে পড়িয়া ঘামাইতেছেন। আহার করিতে বসিয়া দেখিতাম, তাঁহার বড় মানষিী কিছই নাই, সামান্য ডাল ভাত মনের আনন্দে আহার করিতেছেন। এ সকল আমার বড় एख्लाCव्ना व्लाक्रिाऊ । প্রকাশ্যে দীক্ষাগ্রহণ ও উপবীত ত্যাগ। ক্ৰমে ১৮৬৯ সালের ৭ই ভাদ্র (২২শে আগস্টট) ভারতবষীয় ব্ৰহম্মমন্দির প্রতিস্ঠার দিন আসিল। তখন কয়েকজন যািবককে দীক্ষিত করিবার প্রস্তাব হইল। আমার কোনো কোনো বন্ধ আমাকে জিজ্ঞাসা করিলেন, SBDD DDBD DBBBDB sBeBeDBkD D DD DDDD DDDBDS BB DuD LBLBL DBBDBD LDDDDDDDS DDD BD DBBDBDBB BDD S DBDD DBBS BBBB BBB DB DBDD DDD দিবস। দীক্ষাগ্ৰহণ করিব, এইরূপ স্থির হইল। তদনসারে আমরা ২১ জন যােবক Addit