পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/১৫৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S$8 শিবনাথ শাস্ত্রীর আত্মচারিত [ ৫ম পরিঃ পরিত্যাগ করিয়া প্ৰায়শ্চিত্ত পূর্বক অপর একটি বালিকাকে বিবাহ করিবার জন্য যোগেনকে পীড়াপীড়ি করিতেছেন। যোগেন মাতাকে লইয়া অতিশয় ব্যস্ত হইয়া পড়িয়াছেন ; এমন কি, তঁহার কাছে রাত্রি যাপন করিতে আরম্ভ করিয়াছেন ; তঁহাকে ছাড়িয়া মহালক্ষ্মীর কাছে রাত্রিতেও আসিতে পারিতেছেন না। এই সময়ে মহালক্ষ্মীর কাছে থাকে কে ? তাহার মাত কন্যার পুনর্বিবাহের প্রস্তাব শুনিয়াই কলিকাতা ত্যাগ করিয়া কাশী চলিয়া গিয়াছেন ; এদিকে ঈশানেরও হাসপাতালের নাইট ডিউটি উপস্থিত। তাই আমাকে টেলিগ্ৰাম করিয়াছেন। আমি আসিয়াই যোগেনের মাকে দেখিতে গেলাম, ও তঁহাকে অনেক বুঝাইলাম। তঁহাকে বুঝাইয়া ও যোগেনকে বলিয়া, যোগেনকে মহালক্ষ্মীর নিকট রাত্রি যাপন করিতে প্রবৃত্ত করিলাম। তিনি সমস্ত দিন মাতার কাছে যাপন করিয়া রাত্রে বাড়ীতে আসিতে আরম্ভ করিলেন। কিন্তু আসিতে অনেক রাত্ৰি করিতেন। ঐ সময় আমি আহারান্তে মহালক্ষ্মীর ঘরে বসিয়া তঁহাকে বাঙ্গলা ও ইংরাজী পড়াইতাম এবং দুজনে ধৰ্ম্মবিষয়ে আলাপ ও উপাসনা করিতাম । এইরূপে আমার গুরুতর শ্রম আরম্ভ হইল। যোগেন তঁাহার ভগ্নহৃদয়া মাতা ও আত্মীয় স্বজনকে লইয়াই সৰ্ব্বদা ব্যস্ত থাকিতেন ; ঈশানেরও পাঠ ও নাইট ডিউটর হাঙ্গামাতে অবসরাভাব হইল। এদিকে চাকর চাকরানী নাই ; সুতরাং আমাকেই বাজার করা, তিন তলাতে কঁাধে করিয়া জল তোলা প্রভৃতি সমুদয় গৃহ কৰ্ম্ম করিতে হইত। এই সকল স্মরণ করিয়া এখন আনন্দ হয়। এ সকল শ্ৰম করিতে আমার কিছুই ক্লেশ হইত না, কারণ মহালক্ষ্মীর বিমল ভালবাসাতে আমাকে সরস রাখিত। মানুষ মানুষকে এত ভালবাসে না ! যোগেনকে সৰ্ব্বদাই আত্মীয় স্বজনের কাছে যাইতে হইত, সুতরাং আমিই তার সঙ্গী, তার শিক্ষক, তার সহায়, তার রান্নাঘরের চাকর, সকলি । আমি এক দিন অন্যত্র গেলে সে অস্থির হইয়া উঠিত।