পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/১৯৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


:১৮৬৯, ’৭০ ] দ্বিতীয়া কন্যা তরঙ্গিণীর জন্ম ; গণেশস্কন্দরী VO সকল কারণে আমার পাঠের সমূহ ক্ষতি হইতে লাগিল। এই সময় স্বৰ্গীয় ডাক্তার অন্নদাচরণ খাস্তগির মহাশয় ও অপরাপর কতিপয় ডাক্তার বন্ধু সহায় না হইলে এই বিপদ সাগর উত্তীর্ণ হইতে পারিতাম না। দ্বিতীয়া কন্যা তরঙ্গিণীর জন্ম -১৮৭০ সালের ৮ই শ্রাবণ আমার দ্বিতীয়া কন্যা তরঙ্গিণীর জন্ম হইল। সে সাত মাসে জন্মিয়াছিল। তাহাকে তুলার বিছানা করিয়া কৃত্রিম তাপ দিয়া বঁাচাইতে হইয়াছিল বলিয়া তাহার নাম ‘তুলী’ হইয়া গিয়াছে, এবং তাহাই অদ্যাপি আছে। তাহার জীবন রক্ষা খাস্তগির মহাশয়ের চিকিৎসা পারদশিতার একটি উজ্জল প্ৰমাণ। সে যে বাচিবে, কেহই তাহা মনে করে নাই। দুই এক মাস পরেই বায়ু পরিবর্তনের জন্য, কলাইঘাটার যে কুঠাতে উৎসব হইয়াছিল * এবং যেখানে তদবধি আমাদের ব্রাহ্ম বন্ধু নীলকমল দেব ছিলেন, সেখানে প্ৰসন্নময়ীকে রাখিয়া আসি ; এবং আমি ৩৩নং মুসলমান পাড়া লেনে, যে বাসাতে রজনীনাথ রায়, নন্দলাল রায়, সারদানাথ হালদার, শ্ৰীনাথ দত্ত, কালীপ্রসন্ন চক্ৰবৰ্ত্তী প্ৰভৃতি সহন্দীক্ষিত ব্ৰাহ্ম বন্ধুগণ বাস করিতেছিলেন, সেই বাসাতে তীহাদের সঙ্গে গিয়া বাস করিয়া বি এ পরীক্ষার জন্য প্ৰস্তুত হইতে থাকি । গণেশসুন্দরীর খ্ৰীষ্ট ধৰ্ম্ম গ্রহণ ও পরে ব্ৰাহ্মসমাজে আগমন। —এ সময়ের একটি স্মরণীয় ঘটনা গণেশস্ত্ৰািন্দরীর খ্ৰীষ্ট ধৰ্ম্ম গ্ৰহণ ও তৎপরে ব্ৰাহ্মসমাজে আগমন। গণেশসুন্দরী কলিকাতা নিবাসী এক বৈদ্য পরিবারের বিধবা কন্যা। মিশনারী মহিলাগণ তখন হিন্দু গৃহস্থাদিগের বাড়ীতে বাড়ীতে অন্তঃপুরবাসিনী হিন্দু ললনাদিগকে পড়াইয়া বেড়াইতেন। অতি অল্প ব্যয়েই র্তাহাদিগকে পাওয়া যাইত। এই জন্য অনেক ভদ্র লোক নিজ গৃহে তঁহাদিগকে ডাকিয়া স্বীয় স্বীয ভবনের মহিলাদিগকে পড়াইতে দিতেন। আমিও প্ৰসন্নময়ীকে আনিয়া প্ৰথমে এইরূপে + » av পৃষ্ঠা দেখ।