পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২০৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


YA ER শিবনাথ শাস্ত্রীর আত্মচরিত [ ৬ষ্ঠ পরিঃ মহৎ ভাব দেখাইবার জন্য আদিম প্রফেটদিগের ভবিষ্যদ্বাণীর সহিত পরবর্তী ঘটনা তুলনা করিয়া দেখাইতে লাগিলেন, এবং আমাকে একখানি বাইবেল উপহার দিলেন ; আমার প্রতি পুত্ৰাধিক স্নেহ প্ৰদৰ্শন করিয়া বিদায় করিলেন। আমি ভাবিতে ভাবিতে আসিলাম, “ইনি কেন খ্ৰীষ্টীয় ধৰ্ম্মে ौिक्रिऊ श्न ना ?" শ্যামবাজারের উপদেশের ধাক্কা এখানেও থামিল না । কয়েক দিন পরেই সিন্দুরিয়াপটী পারিবারিক সমাজ’ হইতে ক্ষেত্ৰনাথ শেঠ নামে এক জন সভ্য আসিয়া উপস্থিত। আসিয়া আমাকে বলিলেন যে, উক্ত পারিবারিক সমাজের সকলের ইচ্ছা যে আমি তঁহাদের সমাজের আচাৰ্য্যের ভার গ্রহণ করি। অগ্ৰে অযোধ্যানাথ পাকড়াশী মহাশয় সেই সমাজের আচাৰ্য্যের কাৰ্য্য করিতেন ; কিন্তু কাৰ্য্যবাহুল্য নিবন্ধন তিনি সেই ভার পরিত্যাগ করিয়াছেন, এখন আমাকে গ্ৰহণ করিতে হইবে। পাকড়াশী মহাশয়ের প্রতি আমার প্রগাঢ় শ্রদ্ধা ছিল। আমি তঁহার উপদেশে বিশেষ উপকৃত হইয়াছি। আর বাস্তবিক ব্ৰাহ্ম আচাৰ্য্যদিগের মধ্যে চিন্তাশীলতা মৌলিকতা ও আধ্যাত্মিক দৃষ্টি বিষয়ে এরূপ অল্প লোক দেখিয়াছি। তঁহার পরিত্যক্ত বেদী আমি গ্ৰহণ করিব, ইহা ভাবিয়া সঙ্কুচিত হইলাম। কিন্তু তঁহাদের হাত এড়াইতে পারিলাম না । শেষে, এক শুক্রবারে গিয়া উপাসনা করিতে স্বীকৃত হইলাম। এবারেও উপদেশ লিখিয়া লইয়া গিয়াছিলাম । এই এক বার উপদেশ দিয়া আমার বিপদ দশ গুণ বাড়িয়া গেল। তঁহারা আমাকে নাছোড়বান্দা হইয়া ধরিলেন । কাজেই আচাৰ্য্যের ভার আমাকে গ্ৰহণ করিতে হইল। এই ভার আমার প্রভূত আধ্যাত্মিক উন্নতির ও আচাৰ্য্যের কাৰ্য্য শিক্ষার উপায়স্বরূপ হইল। আমি কয়েক বৎসর এই কাজ করিয়াছিলাম। যেখানেই থাকি, শুক্রবার সন্ধ্যার সময় সিন্দুরিয়াপটীতে আসিয়া উপস্থিত হইতাম "; কি বলিব, সে বিষয় সপ্তাহ কাল ভাবিতাম ; উপাসক মণ্ডলীর অভাব নিজ চিত্তে ধারণ