পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২৬৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


RR8 শিবনাথ শাস্ত্রীর আত্মচারিত [ ১০ম পরিঃ কেবল জল পানের সময় ধাতুনিৰ্ম্মিত গ্লাসের পরিবৰ্ত্তে মাটির গ্লাস ব্যবহার করিতে লাগিলেন। ঝুলি লইয়া নিজের ভবনে ভিক্ষা মাঙ্গিতে লাগিলেন ; পরিবারস্থ ব্যক্তিগণ র্তাহাকে মুষ্টিভিক্ষা দিতে লাগিলেন। তঁহার দেখাদেখি প্রচারক মহাশয়দিগের কেহ কুকু রাধিয়া খাইতে লাগিলেন। ইহার অল্প দিন পরেই কোন্নগরের সন্নিকটে একটি বাগান লইয়া কেশব বাবু তাহার “সাধন কানন” নাম রাখিলেন, এবং নিজে প্রচারক দলের সহিত সেখানে বাস করিতে লাগিলেন। সেখানে নিজ হস্তে রাধিয়া খাওয়া, জল তোলা, বাগানের মাটি কাটা প্রভৃতি বৈরাগ্য আচরণ পূর্ণ মাত্রায় চলিতে লাগিল। তাহা লইয়া কলিকাতার যুবক ব্ৰাহ্ম দলে খুব হাসাহাসি চলিতে লাগিল। ফলতঃ, ইহার কিছু দিন পূর্ব হইতেই যুবক দলের উপর কেশব বাবুর প্রভাব হ্রাস হইতেছিল। ব্ৰাহ্ম যুবকগণের ধারণা জন্মিয়াছিল যে, তিনি এক সময়ে মহৰ্ষি দেবেন্দ্ৰনাথের সহিত বিবাদ করিয়া ব্ৰাহ্ম প্রতিনিধি সভা গঠন পূর্বক ব্ৰাহ্মসমাজে নিয়মতন্ত্র প্রণালী প্ৰবৰ্ত্তিত করিবার চেষ্টা করিয়াছিলেন বটে ; কিন্তু ক্ৰমশঃ তঁহার নিয়মতন্ত্র প্রণালীতে বিশ্বাস চলিয়া গিয়াছে। তিনি এখন হয়ত মনে করিতেছেন যে, ধৰ্ম্মসমাজের কাৰ্য্যে সাধারণের হাত না থাকিয়া ঈশ্বর প্রেরিত মহাজনের হাত থাকা কৰ্ত্তব্য ; এই কারণে তিনি সমাজের কাৰ্য্যে অপরের কর্তৃত্ব স্থাপিত হইতে দিতে চান না, নিজে সর্বময় কৰ্ত্ত হইয়া থাকিতে চান। এই সংস্কার হৃদয়ে বদ্ধমূল হওয়াতে যুবকগণ তঁহার দিক হইতে মুখ ফিরাইয়া লইতে লাগিলেন। আমাদের মনের উপরে তঁহার শক্তি অনেক পরিমাণে যেন হ্রাস হইতে লাগিল । - ভারত সভা স্থাপনের পরামর্শ।-যখন ব্ৰাহ্মসমাজে এই সকল আন্দোলন চলিতেছে, তখন আনন্দমোহন বসু, সুরেন্দ্ৰনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ও আমি, তিন জনে আর এক পরামর্শে ব্যস্ত আছি।” আনন্দমোহন বাবু ন্ধদাত হইতে আসার পর হইতে আমরা একত্ৰ হইলেই এই কথা উঠিত