পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৩৩৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


›ኳ”ፃሕ ] টুণ্ডলা &b" ভাবিতে লাগিলাম, লাহোর। যাইবার ব্যয় কোথা হইতে আসিবে ? আমি কলিকাতা হইতে মনে মনে প্ৰতিজ্ঞা করিয়া বাহির হইয়াছিলাম যে, পাথেয়ের জন্য কলিকাতাতে লিখিব না, আপনার ব্যয় আপনি সস্কুলান করিয়া লইব ; এইরূপে প্রচার কাৰ্য্য চালাইয়া লইতে হইবে। সেই প্ৰতিজ্ঞানুসারে মহা অভাবের মধ্যে পড়িয়াও কলিকাতার বন্ধুদিগকে জানাইতেছি না। এই বার কিন্তু সঙ্কট উপস্থিত। সে ব্যক্তি একে ব্ৰাহ্ম নহে, তাহাতে আবার আমাদের চাকর ছিল এবং আমিই তাহাকে তাড়াইয়াছিলাম। সুতরাৎ তাহার নিকট সাহায্য ভিক্ষণ করা অসম্ভব বোধ হইতে লাগিল। অথচ আর কেহ নিকটে নাই যাহার নিকট সাহায্য ভিক্ষা করি। অবশেষে স্থির করিলাম, লাহোরের রেল ভাড়া ঐ ব্যক্তির নিকট ঋণ করিয়া লইব এবং পরে লাহোর হইতে তাহাকে পাঠাইব । ইতস্ততঃ করিতে করিতে দুই দিন কাটিয়া গেল। এই দুই দিন। কিন্তু বৃথা যাপন করিলাম না । সে ব্যক্তির দ্বারা সেখানকার স্কুলের হেড মাষ্টারের অনুমতি লইয়া স্কুল ভবনের উঠানে এক বক্তৃতা করা গেল । সে বক্তৃতাতে স্থানীয় বাঙ্গালী ও হিন্দুস্থানী ভদ্রলোক অনেক উপস্থিত ছিলেন। বক্তৃতার পর দিন লাহোর যাত্রার কথা । সে সঙ্কল্প তাহাকে জানাইয়াছিলাম। সে ব্যক্তির নিকট টাকা কার্জ করিব ভাবিয়াছিলাম, কিন্তু লজ্জাতে রাত্ৰে আহারের পূৰ্ব্বে চাহি চাহি করিয়া মুখ ফুটিয়া চাহিতে পারিলাম না। প্রাতে উঠিয়া দেখি, সে আপীসে গিয়াছে, রাঁধুনীকে আমার জন্য রাধিতে বলিয়া গিয়াছে। আমি স্নান উপাসনা করিয়া আহারের জন্য প্ৰস্তুত হইতেছি, এমন সময় সে আসিয়া উপস্থিত। বলিল, “আহার ক’রে নিন, আহার ক’রে নিন, গাড়ির সময় হ’ল।” এই বার কর্জের প্রস্তাব আসিতেছে। আমি। ই হে, লাহোরের ভাড়া কত ? সে ব্যক্তি। তা আপনাকে ভাবতে হবে না। আপনি পাছে আমার