পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৪০২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ADG 8 শিবনাথ শাস্ত্রীর ‘আত্মচারিত [ ১৬শ পরিঃ যাহা হউক, বাবা কয়েক দিনের মধ্যে সারিয়া উঠিলেন। তিনি অন্ন পথ্য করিলে, আমরা তঁহাকে সুস্থ দেখিয়া কলিকাতা যাত্রী করিলাম। আমাদের যাত্ৰা করিবার সময় তিনি বলিলেন, “আমি বোমাকে গাড়িতে তুলে দিয়ে আসব।” আমি বলিলাম, ‘না বাবা, তা হবে না। আপনার বৌমাকে ত আমি এনেছি, আমিই নিয়ে যাব ; আপনার মা ওয়া হবে না ।” তিনি কোন মতেই সে কথা শুনিলেন। না ; মহা চেষ্টাতে উঠিতে চাচিলেন । কি করা যায়, দুই জন লোক তঁর কাধে হাত দিয়া তাঁহাকে শান্য তইতে তুলিলেন, এবং ধরিয়া আস্তে আস্তে সিঁড়িা দিয়া নীচে নামাইলেন ; তার পরে বাবা কোনও মতে লাঠিতে ভর দিয়া ও মানুষের হাত ধরিয়া ধরে ধীরে গলির মোড়ে বড় রাস্তার পারে আমাদের গাড়ির নিকট পৰ্য্যন্ত আসিলেন । যেই আমি ও বিরাজমোহিনী তাঁর পদধূলি লইয়া গাড়িতে উঠিলাম, অমনি বাবা কঁদিয়া মাথা লুরিয়া রাস্তার বসিয়া পড়িলেন। সেখান হইতে ধরাধরি করিয়া ভঁাতাকে ২রাসায় লিষ্টয়া যাওয়া হইল । দ্বিতীয়া কন্যা, তরঙ্গিণীর বিবাহ -ই তার কিছু কাল পরে (১৮৮৮ সালের ১৩ই এপ্রিল ) বাঘ আঁচড়া নিবাসী শ্ৰীমান্য যোগেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় নামক একটি সুব্বার সহিত আমার দ্বিতীয়া কািট । তরঙ্গিণপ বিবাহ হয় ।