পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৪১৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


\S)'Vð8 শিবনাথ শাস্ত্রীর আত্মচারিত [ »१*थं পূরঃ পুরুষ ও মহিলার প্রতিষ্ঠিত একটি শ্রমজীবীদের সভাতে গেলাম। সেদিন আলোচ্য বিষয় ছিল, “পানাসক্তির অবৈধতা ।” আমি সুরাপান বিরোধী বলিয়া আমাকে তাহারা নিমন্ত্ৰণ করিয়াছিলেন। জাতীয় পানাসক্তির অনিষ্ট ফলের বিষয় বক্তাগণ যখন বর্ণনা করিতে লাগিলেন, তখন আমার মন বিস্ময় ও ঘূণাতে অভিভূত হইতে লাগিল। অবশেষে তঁাহারা আমাকে কিছু বলিবার জন্য অনুরোধ করিলেন। আমি বলিলাম, “তোমরা মুখে ‘সুরাপান নিবারণ’ ‘সুরাপান নিবারণ’ বলিতেছ ; আমি ত দেখি, তোমরা সুরা সাগরে নিমগ্ন আছে। তোমাদের রাস্তার মধ্যে শুড়ীর বাড়ী সর্বশ্রেষ্ঠ বাড়ী । সেটা যেন সাধারণ মানুষের বৈঠকখানা ; ভদ্রলোক সেখানে প্ৰবেশ করিতে লজ্জা পায় না। কিন্তু আমাদের দেশে ভদ্রলোক কখনও শুড়ীর দোকানে প্ৰবেশ করে না ; ছোট লোকেরাই প্ৰবেশ করে। আমি সেই দেশ হইতে আসিয়াছি, যে দেশের পূর্বপুরুষগণ সুরাপানকে মহাপাতকের মধ্যে গণ্য করিয়াছিলেন।” এই বলিয়া মনুর “ব্ৰহ্মহত্যা সুরাপানং স্তেয়ং” প্রভৃতি বচন উদ্ধৃত করিলাম। আর একটি বচন উদ্ধৃত করিয়া দেখাইলাম যে, সেই পূৰ্বপুরুষগণ আদেশ করিয়াছেন যে, মত্ত হস্তীতে তাড়া করিলে বরং হস্তীর পদতলে পড়িয়া মরিবে, তথাপি শুণ্ডিকালয়ে আশ্ৰয় লইবে না । এই সমস্ত বচন শুনিয়া উপস্থিত পুরুষ ও মহিলাগণ হঁ করিয়া রহিলেন, ও পরস্পর মুখ দেখাদেখি করিতে লাগিলেন। যখন আমি বলিলাম যে, “আমাদের দেশে এরূপ লক্ষ লক্ষ পরিবার আছে, যথা আমার নিজের পরিবার, যাহারা চৌদ্দ পুরুষের মধ্যে কোন প্রকার মদ্য দেখে নাই ; এরূপ দেশে তোমাদের গবর্ণমেণ্টের অধীনে প্ৰকারান্তরে সুরাপানের প্রশ্ৰয় দেওয়া হইতেছে, এবং হাজার হাজার সুরার দোকান স্থাপিত হইতেছে,” তখন চারি দিকে। shame, shame, ( কি লজ্জা ! কি লজ্জা ! ) শব্দ छेठिं८ङ লাগিল ।