পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৪৭৬

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


isse ! শিবনাথ শাস্ত্রীর আত্মচারিত [ ২০শ পরিঃ সুশৃঙ্খলা |-নারী জাতির শিক্ষা ও সামাজিক অধিকারের 'পৱে ইংরাজ গৃহস্থের গৃহের দ্বিতীয় প্রধান আকর্ষণ, পারিবারিক সকল কাৰ্য্যের সুব্যবস্থা। যে কাজটি যে সময়ে করিবার নিয়ম আছে, সে সময়ে সেটি হইবেই হইবে। উঠিবার ঘণ্টা, চা খাইবার ঘণ্টা, পারিবারিক উপাসনার ঘণ্টা, প্ৰান্তরাশের ঘণ্টা, মাধ্যাহিক আহারের ঘণ্টা, বৈকালের চা খাইবার ঘণ্টা, ডিনারের ঘণ্টা, এইরূপ ঘণ্টার পর ঘণ্টা চলিয়াছে। ঠিক সময়ে আসা চাই, ঠিক সময়ে খাওয়া চাই, ঠিক সময়ে ওঠা চাই। এইরূপ সময়ের সুব্যবস্থা থাকাতে হাতে অনেক সময় থাকে, এবং পরিবারের লোকেরা অনেক কাজে মন দিতে পারে। তৎপরে অগ্ৰে যে নিস্তব্ধতার বর্ণনা করিয়াছি তাহা পরিবার মধ্যেও বিদ্যমান। গৃহ মধ্যে জলস্রোতের ন্যায় কাৰ্য্যস্রোত চলিতেছে, অথচ গৃহের মধ্যে থাকিয়াও জানিতে পারা যায় না । যে পড়িতেছে, সে নিস্তব্ধ গৃহে নিৰ্জনে একান্ত মনে পড়িতেছে ; যে চিন্তা করিতেছে সে নিরুদ্বিগ্ন চিত্তে চিন্তা করিতেছে ; যে কাজ করিতেছে সে অপর পাশ্বে দুরন্ত শ্রম করিতেছে ; যার কাজ তার কাজ, তাহাতে অপরের সংশ্ৰব নাই। এই চিন্তা ও কাৰ্য্যের ব্যবস্থা অতীব মনোরম ৷ তাহার পর আর একটি গুণ, যাহাকে ইংরাজীতে order বলে, অর্থাৎ যেখানকার যেটা সেইখানে সেইটি থাকা । দোয়াতটির জায়গায় দোয়াতটি, বইগুলির জায়গায় বইগুলি। আবশ্যক হইলেই পাওয়া যায় ; কোনও জিনিসের প্রয়োজন হইলে পাইতে দুই মিনিট বিলম্ব হয় না। এ দেশে কত বার দেখিয়াছি, গৃহস্বামী এক স্থানে দোয়াত কলম রাখিয়া গিয়াছিলেন, বাড়ীর কোনও ছেলে আসিয়া কলমটি কোথায় লইয়া গিয়াছে ; গৃহস্বামী একটা বিল স্বাক্ষর করিয়া দিবেন, কলমটির প্রয়োজন ; চীৎকার করিতেছেন, “ওরে রামা ! কলম নে গেল কে ? কলমটা দেখে নিয়ে আয়।” কলম আসিতে বিলম্ব হইতেছে, তঁহার মেজাজ খারাপ হইয়া