পাতা:আত্মচরিত (৩য় সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৯৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Sy&9-9 ) “সোমপ্রকাশ” ছাপাখানায় কুসঙ্গ ዓ ዓ অসহ্য বোধ হইতে লাগিল। আমি ‘মামা'কে পরিয়া আনিবার জন্য বাসার বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদিগকে অনেক অনুরোধ করিলাম। কিন্তু তাহারা নেশা করিয়া বুদ হইয়া পািছলেন, কেহই আমার কথার প্রতি কৰ্ণপাত করিলেন না । অবশেষে আমি যেদে নামক এক চাকরকে সঙ্গে করিয়া সুকিয়া ষ্ট্রীটের সেই গণিকালয়ের অভিমুখে বাহির হইলাম। । গিয়া দেখিলাম, এক গোলপাতার ঘরের স্ত্রীলোকের দাওয়াতে ‘মামা’ বমি করিয়া ভাসাইয়াছে, ও অৰ্দ্ধ-অচেতন অবস্থাতে পড়িয়া রহিয়াছে। আমরা যাইবামাত্ৰ স্ত্রীলোকটি গালাগালি আরম্ভ করিল। আমি বলিলাম, “চাকর সঙ্গে এনেছি, বমি পরিষ্কার করছি, ও ওকে তুলে নিয়ে যাচ্ছি ; গালাগালি দিও না।” এই বলিয়া বমি পরিষ্কার করাইয়া, যেদে চাকরকে ‘মামা’কে তুলিয়া আনিতে বলিয়া, নিজে দ্রুতপদে বাসার অভিমুখে যাত্ৰা করিলাম ; কারণ, তখন যদিও কলিকাতার পথে ঘাটে বাসাতে মাতাল দেখিতাম, তথাপি মাতালের প্রতি কেমন একটা বিজাতীয় ঘৃণা ও ভয় ছিল, তাহদের কাছে ঘোষিতাম না। বাসাতে আসিয়া তাহদের জন্য অপেক্ষা করিয়া বসিয়া আছি ; অনেক ক্ষণ পরে যেদে চাকর আসিয়া সজোরে দোর নাড়িতে লাগিল। দ্বার খুলিয়া দেখি, “মামা’ সঙ্গে নাই। কারণ জিজ্ঞাসা করাতে, সে ‘মামা’কে অভদ্র ভাষায় গালাগালি দিয়া একখানা ছোরা আনিয়া দ্বারের নিকট বসিল ; বলিল, “মামা' আসিলেই তাহাকে কাটিবে। মনে ভাবিলাম, পথে দুজনে মারামারি করিয়াছে। আমি মহা বিপদে পড়িয়া গেলাম। আমি জানিতাম, যেদে চাকর গাঁজাখের ; সে যাহা ভয় দেখাইতেছে করিতে পারে। বাসার লোককে ডাকাডাকি করিলাম, কেহই উঠিলেন না, বলিলেন, “মরুক হতভাগার।” আমি নিরুপায় হইয়া বাহিরের দরজার ভিতরের দিকে এক তাল লাগাইলাম। যেদে উঠিয়া আমার হাত ধরিল, “তালা লাগাও কেন ?” আমি বলিলাম, “তালার চাবি ত