পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/১১৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Strut- “নিৰ্বাসিতেব বিলাপ” বচন। SoV) চৌধুবা মহাশয়দিগেব আশ্রযে আমি থাকিতাম, তাহাবা সকলেই সাধু সদাশয় লোক ছিলেন, তাহাদেব বিমল চব্বিত্রেব প্রভাব আমাকে অনেক পবিমাণে গঠন কবিয়াছে। তঁহাদেব একজন স্বসম্পৰ্কীয় লোক ছিলেন, তিনি মধ্যে মধ্যে আসিয়া আমাদেব সঙ্গে দুই চাবি দিন যাপন কবিতেন। তিনি একটী সওদাগব। আপীসে একটী বড় পদে প্ৰতিষ্ঠিত ছিলেন ; অনেক টাকা উপাৰ্জন কবিতেন এবং দুই হন্তে ব্যব কাবতেন। বন্দুক ছোড়া, শিকাব কবা, সদলে নীেকাযোগে জলপথে বিচৰণ কবা, প্ৰভৃতি আমোদে অনেক টাকা বায় কবিতেন। এষ্ট-সব কাৰণে তিনি আমাব ন্যায় যুবকদেব চক্ষে একটা “হিবো”ব মত ছিলেন। কিন্তু তাহাব একটু দোষ ছিল, তিনি সুবাপান কবিতেন। একবাবা অপবাপব কয়েক ব্যক্তিব সহিত তাহাব সঙ্গে গঙ্গাব চড়াতে কযেক দিন বাস কবিতে গিযাছিলাম। প্ৰতিদিন পাখা শিকাবেব সময় DBDD DDBuBBS BDBDBBuBDDBD BDLO DBKDB DBDBDBSJ BBDB DDDSS DD তউক, তিনি আমাদিগকে সর্বদাই সুবাপান কবিবাৰ জন্য প্ররোচনা কাপতেন ; বলিতেন, পবিমিত সুবাপান কবিলে শাবাব ভাল থাকে, মনে ঘূৰ্ত্তি থাকে, কাজেব শক্তি বাড়ে, ইত্যাদি। আমাব যেন স্মৰণ হয় যে, তাহাব প্রবোচনায় একদিন কি দুই দিন একটু একটু সুরাপান কবিয়ছিলাম। কিন্তু কি আশ্চৰ্য্য জগদীশ্ববেবী কৃপা ! তৎপবেই মনে মহা নিৰ্বেদ উপস্থিত হইল। প্যাবীচবণ সবকাব মহাশয়কে, মাতুল মহাশয়কে ও পিতাঠাকুবকে স্মবণ কবিয়া মহা লজ্জিত হইলাম, এবং সুবাপান নিবাবণেব জন্য দুৰ্জয় প্ৰতিজ্ঞায় দৃঢ় হইলাম। তদবধি আমি সুৰাপান নিবাবণেব পক্ষে বহিয়াছি। “নির্বাসিতেব বিলাপ” রচনা -মহেশচন্দ্ৰ চৌধুৰী মহাশয়ের বাড়াতে থাকিতে থাকিতে ১৮৬৫ কি ১৮৬৬ সালে ভবানীপুবেব একটী ভদ্রসন্তীন কোনও গুরুতব অপরাধে দ্বীপান্তবে প্রেরিত হয়। সেই ঘটনাতে