পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/১৬২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


o)88 दिनांथ भांकी डांस्कृब्रिड [ ৫ম পরিঃ তাহার কোলে বসাইয়া দিলাম। বিদ্যাসাগর মহাশয় তাহাকে বুকে ধরিয়া আদব করিতে লাগিলেন ; শেষে যাইবার সময় মেয়েটকে ও তাহার মাকে পালকী কারিয়া তৎপবদিন বৈকালে তাহার ভবনে পাঠাইবার জন্য অনুবোধ করিয়া গেলেন, এবং আমাকে বলিয়া গেলেন, “মেয়েটাকে বেথুন স্কুলে ভৰ্ত্তি করে দেও, মাহিনী আমি দেব।” পরদিন বৈকাল বেলা মেয়েটকে ও তার মাকে পালকা করিয়া বিদ্যাসাগব মহাশয়ের বাটীতে পাঠান গেল। তাহাবা সন্ধ্যাব সময় আসিয়া বিদ্যাসাগর মহাশয়ের জননী ভগবতী দেবীর যে প্ৰশংসা করিল, তাহা শুনিয়া আমাদেব মন পুলকিত হইয়া উঠিল। শুনিলাম, ভগবতী দেবী ছুতবেব মেয়ে বলিয়া তাহাদিগকে ঘূণা করা দূরে থাকুক, মেয়েটকে কোলে জড়াইয়াছেন, কাছে বসিয়া তাহাদিগকে খাওয়াইয়াছেন, এবং আসিবাব সময় দুজনকে কাপড় দিয়াছেন। দুঃখের বিষয়, এই মেয়েটীকে বেথুন স্কুলে ভৰ্ত্তি করিবার পূর্বেই সেই বাড়াতে বিষম কলেবা বোগে মহালক্ষ্মীর মৃত্যু হইল ; আমাদের বাসা ভাঙ্গিয়া গেল ; আমবা ছড়াইয়া পড়িলাম ; মেয়েটােব মাও পাশের বাড়ী হইতে উঠিয়া গেল ; মেয়েটা আমাদেব হাতছাড়া হইল । ছুতরের মেয়েটার পরবত্তী জীবন।-ইহার বহুদিন পরে মেয়েটাের সহিত আমার আবার একবার সাক্ষাৎ হইয়াছিল,তাহা এই সঙ্গেই বলা যাউক । তখন আমি সাধাবণ ব্ৰাহ্মসমাজের আচাৰ্য্য, এবং ব্ৰাহ্মসমাজ লাইব্রেরি গৃহে বাস করি। একদিন একজন ভৃত্য কোনও স্ত্রীলোকের একখানি পত্ৰ লইয়া উপস্থিত। খুলিয়া দেখি, সেখানি ঐ মেয়োটীর পত্র। সে আমাকে লিখিয়াছে, “বহু বৎসর পূৰ্ব্বে চাপাতলার দিবীর কোণের এক বাড়ীতে পাড়ার একটি ৭৮ বৎসরের বালিকা আপনাকে দাদা বলিত ও কোলে পিঠে উঠিত, আপনার হয়ত মনে আছে। আমি সেই হতভাগিনী। আমি বিপদে পড়িয়া আপনাকে ডাকিতেছি। একবার দয়া করিয়া আসিয়া সাক্ষাৎ করিবেন।” আমি মনে করিলাম, বিশেষ • বিপদে না