পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২৬৫

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


›ኳ”ፃ©,ፃ 3 ] थांकभचि NOY) আমি যে লক্ষ্মীমণিকে স্বীয় ভবনে আশ্রয় দান করিয়াছিলাম। সে সংবাদ বোধ করি কলিকাতায় প্রচারিত হইয়াছিল ; এই দুইটী ঘটনাই পরোক্ষ ভাবে সে সংবাদের সহিত জড়িত । একদিন আমার বন্ধু প্রচারক রামকুমার বিদ্যারত্ব ও আমি দুইজনে মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথের চরণ দর্শন করিয়া গৃহে ফিরিয়া আসিতেছি। রাজেন্দ্রলাল মল্লিকের বাড়ীর সন্মুখে আসিবার সময় একটী স্ত্রীলোকের পার্শ্ব দিয়া আসিলাম, কিন্তু তাত লক্ষ্য করিলাম না ; তাহার মুখটা দেখিলাম না । ৩াহাকে অতিক্রম কবিয়া কয়েক পা আসিয়াছি, এমন সময় পশ্চাৎ হইতে বামাকণ্ঠে শুনিলাম, ‘হঁ গা শাস্ত্রীমশাই, তোমরা এখন কোথা থাক ?” হঠাৎ ফিরিয়া দেখি, একটী গৌরবর্ণ যুবতী একটী শিশু কস্তার হাত ধরিয়া আসিকৃেছে। মুখ দেখিয়া চিনিতে পারিলাম। ভবানীপুর বাসকালে আমি এক নির্জন পল্লীতে বাস করিতাম, ঐ পতিতা নারী তাহার সন্নিকটেই থাকিত, ও আমাদের মেয়েদের সঙ্গে এক পুকুরে স্নানাদি করিত। সে যে আমাকে চিনিয়া রাখিয়াছে ও আমার নাম জানে, তাহা জানিতাম না। যাহা হউক, আমি ফিরিয়া তাহার মুখের দিকে চাহিবামাত্র সে হাসিয়া বলিল, “তোমার সঙ্গে আমার একটু বিশেষ কাজ আছে। তোমার বাসা কোথায় বললে আমি গিয়ে দেখা করতে পারি ; নতুবা আমার বাসা অমুক নম্বর শিবঠাকুরের গলি, সেখানে তোমাকে একবার আসতে হবে।” ইহার পর বিদ্যারত্ন ভায়া ও আমি দুইজনে বলাবলি করিতে লাগিলাম, “আমাকে যখন জানে, তখন আমি কি তন্ত্রের লোক তা-ও BDBSS BBDD DBBDBS SLDDD DDD BBDB S S D DBBBBS DDBL পারিল্যান্য না, বড়ই আশ্চৰ্য্যবোধ হইল। আসিয়া আমার বন্ধু কেদারনাথ স্নায়কে এই বিবরণ। বলিলাম। তিনি এক সময়ে এই শ্রেণীর জীলোক দের মধ্যে কাজ করিয়াছিলেন। তিনি রলিলেন, “ও- যখন খ্যাকুল কর