পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৩১৩

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বেহাব প্রদেশে প্ৰচাব যাত্ৰা 1 عينه والا সমভিব্যাহারে যাত্রা করিলেন। আমরা সে বারে কোন কোন স্থানে কি কি বিশেষ কাজ করি, তাহার সকল স্মরণ নাই। বোধ হয়, অন্যান্য স্থানের মধ্যে উত্তর বেহারের নেপাল-প্ৰান্তবৰ্ত্তী মতিহারী সহরে গিয়াছিলাম। তখন মতিহারী যাইবার রেল ছিল না । মজঃফরাপূর হইতে ৫০ মাইল এক্কা চড়িয়া যাইতে হইত। এই আমার পথম এক গাডিতে চড। দেখিলাম, এই এক্কা গাড়ি এক অদ্ভুত খান। একটা ঘোডাতে টানে , চালকের পশ্চাতে আরোহীর বসিবার আসন, সে একজন যোগ্য আসন, দুইজনের ভাল স্থান-সমাবেশ হয় না ; আসনেব। উপরে ঠাকুর-চৌকিব छ्त्र छत्र একটু আচ্ছাদন, তাহাতে জল বৃষ্টি বৌদ্র ভালরূপ বাবণ হয় না। চাকাতে প্ৰিং নাই, খটখটু ওঠে ও পড়ে ; অৰ্দ্ধদণ্ডের মধ্যে কোমরে ব্যথা হয়, ছুটলে চাকার শব্দে কণ বধির প্রায় হয়। তাহার উপরে ভূমাবার অনেক গাড়িতে দুই ঢাকাতেই করতাল বাধা থাকে, চাকার খড়খাড়ানি ও করতালের ঋমাঝামানিতে আব্ব কিছু শুনিতে পাওয়া যায় না। গাড়িতে চড়িয়া 'rন হইল, কবিতাল বাধিয়া ভালই করিয়াছে, আরোহী যে বাপারে মা রে করিবে, তাহা চালক শুনিতে পাইবে না , তার গাড়ি চালােনর ব্যাঘাত হইবে না । এই এক গাড়িতে প্ৰথম দিন কিয়দার গিয়া অচেতন্যপ্ৰায় এক দোকানে পড়িলাম। মনে করিলাম, আর প্রাতে উঠিতে পারিব না। কিন্তু প্ৰাতে দেখি, কোমরের ব্যথা অনেক কমিয়াছে; আবার যাত্রা করিলাম। দুইদিনে মতিহারী পৌছিলাম। মতিহারীতে কয়েক দিন থাকি। পরে সেখানে আরও দুইবার গিয়াছি। মতিহারী হইতে ফিরিয়া আমরা বঁকিপুর আরা এলাহাবাদ হইয়া লক্ষ্মেী যাই। লক্ষেী খ্রিয়া টেলিগ্রাম পাইলাম যে, আমার জ্যেষ্ঠ কাজ হেমলতা কলিকাতাতে অত্যন্ত পীড়িত। মুলারে পরিবারদিগকে প্রোয়ণ r