পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৩৮৪

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ষোড়শ পরিচ্ছেদ । প্ৰমদাচরণ সেন। নীতি বিদ্যালয়। “মুকুল” । “ইণ্ডিয়ান মেসেঞ্জার” । ব্ৰাহ্মমিশন প্রেস। বড়বেলুন-গ্ৰামে প্রচার যাত্ৰা । কেশবচন্দ্রের স্বৰ্গারোহণ ৷ খাসিয়াঙ্গে নিৰ্জনবাস । “হিমাদ্রিকুসুম” । আসামে প্রচার যাত্ৰা । কাশীতে পিতাঠাকুর মহাশয়ের গুরুতর श्रीङ्ख्या । ब्रेिलैक्रो कछा তরঙ্গিণীর বিবাহ । >brゲペー。レrbrbダ ইহার পরে পাঁচ ছয় বৎসরের মধ্যে যে যে বিশেষ কাজ হইয়াছিল, তাহার উল্লেখ করিতেছি। প্ৰমদাচরণ সেন -প্ৰথম, এই সময়ের মধ্যে বালক-বালিকাদিগের জন্য দুইটি রবিবাসরীয় নীতিবিদ্যালয় স্থাপিত হয়। প্রথমটীর প্রধান উদ্যোগকৰ্ত্তা ছিলেন, “সখা”-সম্পাদক প্ৰমদাচরণ সেন। প্রমদা হেয়ার স্কুলে আমার নিকট পড়িত, এবং সে সময় আমি ছাত্ৰাদিগকে লইয়া যে-সকল সভা সমিতি করিতাম তাহাতে উপস্থিত থাকিত। সেই সময় হইতে সে আমাকে পিতার ন্যায় ভালে- “বাসিত এবং সর্ববিষয়ে আমার অনুসরণ করিত। ধৰ্ম্মপুত্ৰ কথাটি যদি কাহারও প্ৰতি খাটা উচিত হয়, তাহা হইলে বলা যায় যে প্রমদা আমার ধৰ্ম্মপুত্র ছিল। ইহার পরে সে ব্ৰাহ্মসমাজে প্রবিষ্ট হয় এবং আমার বাড়ীর ছেলের মত হয়। সিটিকুল স্থাপিত হইলে সে তাহার একজন শিক্ষক হইয়াছিল। সে উদ্যোগী হইয়া অপর কয়েক জন যুবক বন্ধুকে লইয়া সিটিকুল ভবনে বালকদিগের জন্য একটী নীতিবিদ্যালয় স্থাপন করে। সাক্ষাৎ