পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৪২২

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


(oዓቁ9 শিবনাথ শাস্ত্রীর আত্মচারিত [ ১৭শ পরিঃ আমরা কাপড় কেটেছি, কিছু সেলাই করেছি; আপনি আর কোনও দরজীকে ডাকিয়ে অবশিষ্ট করে নিন।” তাহারা যে কাপড় কাটিয়াছিল ও কিছু সেলাই করিয়াছিল, তাহার দাম লইতে চাহিল না। আমি মনে মনে ভাবিলাম, পাছে আমার অসুবিধা হয়, সেদিকে এদের এত দৃষ্টি ! আমাদের দেশে শ্রমজীবীদের মধ্যে এটা দেখা যায় না । আর একটি ঘটনা এই। আমি দেশে ফিরিবার সময় বাড়ীওয়ালী একদিন একজন লোককে ডাকিলেন, সে আমার পুস্তক প্রভৃতি আনিবার জন্য একটি প্যাকিং কেস করিয়া দিবে। প্যাকিং বাক্সটি টিন দিয়া এমন করিয়া মুড়িতে হইবে যেন জাহাজে তাহাতে জল প্ৰবিষ্ট হইতে না পারে। মানুষটাকে ঠিক আমার মনের কথাগুলা বুঝাইতে দেরি হইতে লাগিল। হঁ করিয়া আমার মুখের দিকে চাহিয়া থাকে, কিছু বলে না। আমি তার মুখ দেখিলেই বুঝিতে পারি যে, ঠিক আমার মনের ভাবটা ধরিবার চেষ্টা করিতেছে। যখন বুঝিল, তখন ঠিক সেইরূপ করিয়া দিবে বলিয়া ভার লইয়া গেল। কথা রহিল যে তৎপরদিন ১২ টার মধ্যে বাক্সটি আনিবে, আমরা আহারান্তে প্যাকিং আরম্ভ করিব। তৎপর দিন প্ৰাতে আহার করিতেছি, ঘড়িতে ১১টা বাজিয়া কয়েক মিনিট হইয়াছে, এমন সময়ে প্যাকিং বাক্সের শব্দ শোনা গেল। আমরা উঠিয়া গিয়া দেখি, সুন্দর বাক্সটি করিয়াছে, দোষ দেখাইবার কিছু নাই। বস্তুতঃ ইংরেজ কারিকরগণ যে কাৰ্য্যটীর ভার লয়, সেটা ভাল করিয়া করিবার চেষ্টা করে ; সেটা লইয়া বসিয়া যায়, তাহার মধ্যে যত ভাল হইতে পারে তাহা করিয়া তোলে। সতত ।-সেখানকার প্রজাসাধারণের এই সত্যপরায়ণতার ও সততার, জন্য দেশে এমন সকল কাজ চলিতেছে, যাহা এ দেশ হইলে দুদিন চলিত না। তাহার একটির উল্লেখ করিতেছি। নিম্নশ্রেণীর লোকের সাকুলেটিং লাইব্রেরী -আমি গিয়া