পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৫৫৭

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


fo প্ৰসন্নময়ীর পবিত্র ৮ শুতা ও সরলতা a 0 আমাকে এরা মাইনে দেয় না, পেট ২ ত এদের বাড়ীতে আছি।” সে স্বালোক আশ্চৰ্য্য হইয়া ভাবিতেছে, এ মন সময়ে আমার সন্তানদের মথো কেহ মা বলিয়া ছুটিয়া আসিয়া প্ৰসন্নময়ীকে ধরিল। তখন সে স্ত্রীলোক বলিয়া উঠিল,-“ও মা, তুমি এ বাড়ীর গিন্নি ?” তখন প্ৰসন্নময়ী খ্যাংরা। ফেলিয়া অট্টহাস্ত করিয়া গৃহের মধ্যে গেলেন। পঞ্চম গুণ পবিত্ৰচিত্ততা । পবিত্ৰ চিত্ততাতে তিনি নারীকুলের অগ্রগণ্য শ্রেণীতে ছিলেন। অপবিত্র কাৰ্য্যের প্রতি এমন গভীর ঘূণা প্ৰায় দেখা যায় না । অভদ্র আলাপ, অভদ্র পরিহাস সহ করিতে পারিতেন না ; এমন কি, মলিন চিন্তাও কখনও মনে উদয় হইত না । অধিক কি, যদি কখনও মলিন স্বপ্ন দেখিতেন তাভাতেও চরিত্রের হীনতা জ্ঞানে ক্ষোভ করিতেন। আমি বুঝাইয়া সে ক্ষোভ নিবারণ করিতে পারিতাম না । ষষ্ঠ গুণ সরলতা । তিনি ক1ঙ্গারও অনিষ্ট চিন্তা কখনও করেন। নাই । সংসারের কুটিল পথ একেবারেই জানিতেন না । তাহার চিত্তের সরলতা এতই অধিক ছিল যে, তিনি পঞ্চাশাৎ বৎসরেরও অধিক কাল সংসারের মধ্যে বাস করিয়া গেলেন, তাহার হৃদয় মনে কলঙ্কের রেখাও পড়ে নাই । সপ্তম গুণ, তাহার শিক্ষা কিছুই ছিল না, কিন্তু ব্ৰাহ্মসমাজে আসিয়া তিনি আমার কয়েকজন বন্ধুর প্রতি অন্তরের এরূপ শ্ৰদ্ধা স্থাপন করিয়াছিলেন যৈ, তাহা হইতে কেহই তাঁহাকে বিচলিত করিতে পারিত না। ধৰ্ম্ম সম্বন্ধে তাহার মন এমন কুসংস্কারবিহীন ও সামাজিক বিষয়ে এত অগ্রসর ছিল যে, দেখিয়া অনেকের আশ্চৰ্য্য বোধ হইত ; অনেক সুশিক্ষিত ব্যক্তিতেও তাহা দেখিতে পাওয়া যায় না। দৃষ্টান্তস্বরূপ একটি বিষয়ের উল্লেখ করিতে পারি। আমরা ব্ৰাহ্মসমাজে যোগ দিৰায় পরেও আমার জনক জননী সর্বদাই ইচ্ছা প্ৰকাশ কৱিতেন ক্ষেস আমাত্র সন্তানগণ ব্রাহ্মণকেই বিবাহ করে। প্ৰসন্নময়ী বলিতেন, “তা কি কলিঙ্গুত্ব পারি? *