প্রধান মেনু খুলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্ৰপম। গর্তাঙ্ক । ] আদিশূত্র সনাতন। বুঝেছি, হর্যের পবিত্ৰ কাহিনী একমাত্র তোমা কৃতের উপন্যাসে পরিণত হবে । শান্তি। আমিও বুঝেছি, একা তুমিই এই রাজবংশ ক'টার মাথ ቁሸቯኛ ! সনাতন। শক্তি ! চুপ ক’রে যে ? কোন দিকে দৃষ্টি নাই-অমঙ্গ একমনে ভাবছো কি ? শক্তি। ভাবছি গুরু! বংশে যা নাই, তাই ধুঝি ঘটে,-আমায় গুরু-আজ্ঞার অমৰ্য্যাদা করতে হয় । সনাতন। গুরু-অজ্ঞ কখনও শিষ্যের অমঙ্গলের জন্য নয় শক্তি ! শিষ্যের প্রতি পাদক্ষেপে গুরুর লক্ষ্য; শিষ্ণুের চিন্তায় গুরুর জীবন বিক্রীত । কথা শোন শক্তি ! এতে তোমার মঙ্গল-বৌদ্ধধৰ্ম্মের মঙ্গল-সমস্ত ভারতবর্ষের মঙ্গল। আদিশূরের কন্যাকে আজ গ্রহণ করলে, ভবিষ্যতে তাকেও বৌদ্ধধৰ্ম্মে দীক্ষিত করবার সুযোগ পাওয়া যাবে।--ভারতে অনৰ্থক বাণীবান্ত বাজবে না। জগতবন্ধন প্ৰবেশ করিলেন । জগৎ । বেজে উঠেছে গুরু ! এখন আর ও অ্যায়োজন সাজবে না। -শক্তি ; দাড়িয়ে যে ? সংবাদ পাও নাই ? আদিশূর কণোজপ্ৰান্তে শিবির স্থাপন করছে, আমি ছুটে আসছি।--মালবের সমস্ত শক্তি নিয়ে, তুমি । তোমার সমান্ত বাহিনী চালনা কর। আজ সেই বাঙ্গলা যুদ্ধের প্রতিশোধ -আজি আদিশূরের তপ্ত রক্তে বুদ্ধদেবের তর্পণ-আজ অহিংসাময় বৌদ্ধ, জীবনের একটা পবিত্ৰ মহোৎসব । চল-চল । শান্তি। এ যুদ্ধটায় তোমরাই যাও কাকা । দাদাকে আর

  • g 豆叶!

r 84