পাতা:আদিশূর ও বল্লালসেন.pdf/২৮

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আদিশূর ও বল্লাল সেন । *め লিখিত থাকিলেও আমরা আদিশূরের ক্ষত্ৰিয়ত্ব স্বীকার করিতে পারি না । যেহেতু পূর্বোল্লিখিত প্রামাণ্য এবং প্রচলিত কুলজি গ্রন্থ সমূহের মতবিরুদ্ধে এবং বংশপরম্পরাগত কিম্বদন্তির বিরুদ্ধে, এক অনিশ্চিত এবং অপ্রচলিত পুস্তক প্রমাণ স্বরূপ গ্রাহ্য হইতে পারে না । আমরা যে কএকখানি কুলজি গ্রন্থের উল্লেখ করিলাম, তন্মধ্যে প্রতি পুস্তকেই প্রথমে আদিশূরের বর্ণনা তৎপরে বল্লাল সম্বন্ধে কতিপয় শ্লোক লেখা আছে। কুলপঞ্জিকার এই প্রচলিত রীতানুসারে, রাজেন্দ্র বাবুর উল্লিখিত কুলপঞ্জিকাতে বল্লালের বর্ণনা ঘটিত কতিপয় শ্লোক থাকা সম্ভব । কিন্তু তিনি উক্ত কুলপঞ্জিকা হইতে আদিশূরসম্বন্ধে একমাত্র প্রমাণ উদ্ধত করিয়াছেন, বল্লাল সম্বন্ধে কোন বচনের উল্লেখ করেন নাই । যাহা হউক আদিশূরের ক্ষত্ৰিয়ত্ব প্রতিপাদক রাজেন্দ্র বাবুর দর্শিত প্রথম প্রমাণের বিরুদ্ধে কুলজি গ্রন্থ হইতে যে সকল প্রমাণ প্রাপ্ত, হইয়াছি তৎসমুদয় উল্লেখ করাগেল। পাঠকবর্গ রাজেন্দ্র বাবুর প্রদর্শিত প্রমাণ কতদূর অকাট্য এবং সঙ্গত বিবেচনা করিবেন । *

  • রাজেন্দ্র বাবুর উল্লিখিত, কুলাচাৰ্য্যঠাকুর কৃত কুলজি গ্রন্থে আদিশূরের ক্ষত্রিয় জাতি নির্দেশ আছে, কিন্তু অন্যান্য কুলজিগ্রন্থে, আদিশূর বৈদ্যজাতি, স্পষ্টাক্ষরে উল্লেখ প্রাপ্ত হওয়া যায় । এবম্বিধ মতভেদের কারণ আমরা অনুমান দ্বারা যতদূর স্থির করিতে পারিয়াছি, তাহাতে বোধ হয় যে, লিপিকারকের ভ্রম বশতঃ রাজেন্দ্রবাবুর কথিত কুলপঞ্জিকাতে, পাঠের কোন প্রকার পরিবর্তন হইয়! থাকিবে ।

• এতদ্দেশে মুদ্রাযন্ত্র প্রচলিত হওয়ার পূৰ্ব্বে সকলকেই পুস্তকাদি স্বহস্তে লিখিয়া লইতে হইত যাহার বিদ্বান এবং ভাষাজ্ঞ তাহারাই গ্রন্থাদির অবিকল, এবং যথাযথ প্রতিলিপি করিতে পারিতেন । কিন্তু যাহার তদ্বিষয়ে