পাতা:আদিশূর ও বল্লালসেন.pdf/২৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२२ আদিশূর ও বল্লাল সেন। রাজেন্দ্র বাবুর প্রদর্শিত আদিশূর এবং বল্লালের দ্বিতীয় প্রমাণ, কেশবসেন প্রদত্ত তাম্র শাসন পত্রে সেনবংশীয় ভূপালদিগের সোমবংশোদ্ভব উল্লেখ, ও রাজসাহীর প্রস্তরাঙ্কিত শ্লোকে বিজয়সেন প্রভৃতির চন্দ্রবংশোৎপন্ন নির্দেশ । উপরোক্ত দ্বিতীয় প্রমাণের সমালোচনার তাগ্রে, তাম্র শাসনপত্র ও প্রস্তরফলক-বর্ণিত বিষয়ের সংক্ষেপে উল্লেখ নুনি, তাহাদিগের লিখিত পুস্তকের অধিকাংশ স্থলে, মূল পুস্তকের পাঠ পরিবর্তন এবং ভাবান্তর হইয়া যাইত । বিশেষতঃ কুলজিগ্রন্থের আলোচন। এবং প্রয়োজন একমাত্র ঘটক সম্প্রদায়ের হস্তে ন্যস্ত ছিল । ব্যবসায় চালাইবার অনুরোধে, অনেকেই ব্যাকরণ ও সাহিত্য শিক্ষার অবসর প্রাপ্ত হইতেন না ; এবং অল্প কিঞ্চিৎ শিক্ষা করিয়া ব্যবসায় আরম্ভ করিতেন, ও কুলজি হইতে কতিপয় শ্লোক কণ্ঠস্থ করিয়া, জনসমাজে ঘটকচূড়ামণি বলিয়া প্রসিদ্ধ হইতেন। এই সকল ঘটকচূড়ামণিরাই কুলজি গ্রন্থের পাঠ পরিবর্তন করিয়া নান। প্রকার গণ্ডগোল করিয়াছেন । যাহা হউক উপরোক্ত স্থাপনায় নির্ভর করিয়া, উপলব্ধি হয় যে, রাজেন্দ্র বাবুর কুলজিগ্রন্থে “ক্ষত্রিয়বংশহংসঃ’ পাঠ পরিবর্তে যদি “ক্ষেত্ৰিয়বংশহংসঃ” পাঠ করা যায়, তবে এই কুলজিগ্রন্থ অন্যান্য কুলজিগ্রন্থের সহিত এবং দেশীয় কিম্বদন্তির সহিত একতা অবলম্বন করে । মেদিনী অভিধানে “ ক্ষেত্রিয় ” শব্দ পর্যায়ে “ ক্ষেত্ৰিয়ং ক্ষেত্ৰজতৃণে পরদেহচিকিৎসয়োঃ’ লিখিত আছে। এবং “হংস” শব্দ পর্য্যায়ে “হংস:স্যান্মানসোঁকসি, নিয়েভিনৃপবিষ্ণুকে পরমাত্মনিমৎসরে, যোগীভেদে মন্ত্রভেদে শরীরমরুদস্তরেত্ব্যরঙ্গম প্রভেদেপি”—লিখিত আছে । অতএব “ ক্ষেত্ৰিয়” শব্দ অর্থে, চিকিৎসা ; তৎপর লক্ষণা করিয়া চিকিৎসক বুঝায় । এবং “ হংস ” অর্থ নৃপতি । অতএব “ক্ষেত্ৰিয়বংশহংস:” অৰ্থ চিকিৎসক বংশীয় নৃপতি। আদিশূরকে চিকিৎসক বংশীয়, অর্থাৎ বৈদ্যবংশীয় নৃপতি উল্লেখ করিলে, এই গ্রন্থের সহিত অন্যান্য কুলজিগ্রন্থের অভিন্ন ভাব রক্ষিত হয়। এ জন্য “ক্ষত্রিয় বংশহংসঃ” পাঠ স্থলে, সামান্য পরিবর্তন পূৰ্ব্বক “ক্ষেত্রিয় বংশহংসঃ” পাঠ আমাদের নিকট যুক্তিসঙ্গত বোধ হয়।