পাতা:আদিশূর ও বল্লালসেন.pdf/৩৯

এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৩২ আদিশূর ও বল্লাল সেন। না, এ নিমিত্ত “ ব্রহ্মক্ষত্রিয়ানাং কুলশিরোদামঃ ” বিশেষণ প্রয়োগ করিয়াছেন । এই শ্লোকের পূর্ব চরণে, সামন্তসেন ব্রহ্মবাদী ছিলেন, স্পষ্ট বলা হইয়াছে নবম শ্লোকে সামন্তসেন যে অত্যন্ত বেদানুরাগী, এবং স্বধৰ্ম্মনিরত ছিলেন, কবি বিশেষ রূপে তাহার উল্লেখ করিয়াছেন ণ । যাহা হউক “ ব্রহ্মক্ষত্রিয়ানাং কুলশিরোদামঃ ” বিশেষণদ্বারা সেনবংশীয়দিগের ক্ষত্রিয়ত্ব নিৰ্ব্বিরোধে প্রতিপন্ন হইতেছে না । রাজেন্দ্র বাবুর দ্বিতীয় স্থাপনা এই—প্রস্তরফলকখোদিত শ্লোকে যে বিজয়সেনের বর্ণনা আছে, উক্ত বিজয়সেন, এবং কেশবসেন প্রদত্ত তাম্রশাসন-পত্রে কেশবসেনের প্রপিতামহ বিজয়সেন এক ব্যক্তি, সুতরাং বল্লাল বীরসেনের বংশধর । এই স্থাপনা সম্বন্ধে আমাদের বিশেষ বক্তব্য নাই। বল্লালের পিতা, ধীরসেন, অথবা বীরসেন নামান্তরে বিজয়সেন ভিন্ন, তাহার পিতামহ, প্রপিতামহাদির নাম আমরা আর কোন স্থলে প্রাপ্ত হই নাই। আমাদিগের দৃষ্ট কুলজি গ্রন্থ ভিন্ন অন্য কোন কুলজি পুস্তকে আছে কি না বলিতে পারি না। তাম্রশাসনে বিজয়সেন, বল্লালসেন, লক্ষণসেন ও কেশবসেন, এবং প্রস্তরফলকে বীরসেন বংশীয় হেমন্তসেন, সামন্ত সেন এবং বিজয়সেন নামের উল্লেখ আছে। উভয় ফলকেই বিজয়সেনের নামোল্লেখ থাকাতে ইহারা সকলেই এক বংশীয়, • তস্মিন সেনাম্ববায়ে প্রতিস্বভটশতোৎসাদনব্রহ্মবাদী। স ব্রহ্মক্ষত্রিয়ানামজনি কুলশিরোদাম সমস্তসেনঃ ॥ ৫ ম শ্লোক * ***ট গুস্তত্ত্বত শ্লোকঃ নবম শ্লোক দেখুন।